শালীহর গণহত্যা দিবস আজ শহীদ পরিবারের সদস্যের দ্রুত স্বীকৃতির দাবি

স্টাফ রিপোর্টার
আজ শালীহর গণহত্যা দিবস। ১৯৭১ সালের এই দিনে মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে হানাদার পাকবাহিনী নেত্রকোনার গৌরীপুর উপজেলার শালিহর গ্রামে মুক্তিযোদ্ধাদের খুঁজতে গিয়ে ঘটনাস্থলেই হত্যা করেছিল ১৩ জনকে।
এই দিনে শহীদ হয়েছিলেন শালিহর গ্রামের মোহিনী কর, জ্ঞানেন্দ্র মোহন কর, যোগেশ চন্দ্র প-িত, নবর আলী, কিরদা সুন্দরী, শচীন্দ্র চন্দ্র দাস, তারিনী মোহন দাস, কৈলাশ চন্দ্র দাস, শক্রগ্ন দাস, রামেন্দ্র চন্দ্র দাস, কর মোহন সরকার, দেবেন্দ্র চন্দ্র দাস, কামিনী মোহন দাস।
কিন্তু সেই পরিবারগুলো আজও শহীদ পরিবারের সন্তানের স্বীকৃতি পায়নি। শহীদ জ্ঞানেন্দ্র মোহন করের পরিবার প্রধানমন্ত্রীর কাছে আবেদন জানিয়ে কোন ফল পাচ্ছেন না।
জানা যায়, মুক্তিযুদ্ধের সময় বাড়িঘর আগুনে পুড়ে যাওয়ার পর শহীদ জ্ঞানেন্দ্র মোহন করের ছেলে ডা. বাদল চন্দ্র কর পাক হানাদার বাহিনীর ভয়ে তাহিরপুর উপজেলার টেকেরঘাট সাব-সেক্টরে চলে আসেন। সেখানে তিনি মুক্তিযোদ্ধাদের চিকিৎসাসেবার দায়িত্বে ছিলেন। পরবর্তীতে ডা. বাদল চন্দ্র কর তাহিরপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের রাজনীতি করতেন এবং উপজেলা আওয়ামী লীগের কোষাধ্যক্ষ ছিলেন। ডা. বাদল চন্দ্র কর ২০১৪ সালে মারা যান। তার ছেলে অমল কান্তি কর বর্তমানে তাহিরপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক। তিনি গত বছরের ২৮ নভেম্বর গৌরিপুরের শালীহর গ্রামের গণহত্যায় শহীদ পরিবারের সদস্য হিসেবে স্বীকৃতি পাওয়ার জন্য প্রধানমন্ত্রীর কাছে আবেদন জানিয়েছিলেন। কিন্তু এখন কোন সাড়া পাওয়া যায়নি বলে জানিয়েছেন তিনি।