শীঘ্রই যাদুকাটা নদীতে সেতু নির্মাণ কাজ শুরু

স্টাফ রিপোর্টার
সুনামগঞ্জ-লাউড়েরগড়-ট্যাকেরঘাট-মহেশখলা-মধ্যনগর-ধর্মপাশা সড়কের তাহিরপুর উপজেলার যাদুকাটা নদীর উপর এলজিইডি কর্তৃক বাস্তবায়নাধীন সেতুর কাজ খুব শিঘ্রই শুরু হবে বলে জানা গেছে।
গত বছরের ৪ জুলাই ৭৮ কোটি টাকা ব্যয়ে ৭৫০ মিটার দৈর্ঘ্যরে এই সেতুর দরপত্র আহবান করে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর (এলজিইডি)।  
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভিডিও কনফারেন্সে এই সেতু নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করবেন বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে।
সেতুর নির্মাণ কাজের উদ্বোধনী অনুষ্ঠান খুব শিঘ্রই করার লক্ষ্যে প্রস্তুতি নিয়েছেন স্থানীয় সংসদ সদস্য ইঞ্জিনিয়ার মোয়াজ্জেম হোসেন রতন ও এলজিইডি নির্বাহী প্রকৌশলীর কার্যালয়।
মধ্যনগর, তাহিরপুর তথা সুনামগঞ্জবাসীর দীর্ঘদিনের দাবির প্রেক্ষিতে যাদুকাটা নদীতে বিন্নাকুলি বাজার ও গড়কাটি ইসকন মন্দিরের দক্ষিণ দিকে এলজিইডির বাস্তবায়নে দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম সেতু নির্মাণ করা হচ্ছে।
এই সেতু নির্মাণের ফলে বালু-পাথর-কয়লাসহ সীমান্ত এলাকার ব্যবসা-বাণিজ্যের দ্বার উন্মোচন ও সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থার যুগান্তকারী    
 উন্নয়ন হবে। ধর্মপাশা তথা নেত্রকোনার সাথে জেলা শহরের যোগাযোগ স্থাপন হবে।
বাদাঘাট ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান আওয়ামী লীগ নেতা নিজাম উদ্দিন বলেন,‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সদিচ্ছায় ও মাননীয় সংসদ সদস্যের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় এই সেতু নির্মাণ হচ্ছে। এই সেতু নির্মাণের ফলে আমাদের দীর্ঘদিনের দুঃখ গোছবে ও ব্যবসার সুযোগ বৃদ্ধি হবে।’
সেতুর নির্মাণ কাজের উদ্বোধনী অনুষ্ঠান বিন্নাকুলি বাজারে হবে বলে জানান তিনি।
এলজিইডির নির্বাহী প্রকৌশলী মো. সিদ্দিকুর রহমান বলেন, ‘তাহিরপুরের যাদুকাটা নদীর উপর ৭৫০ মিটার দৈর্ঘ্যরে সেতু নির্মাণ প্রকল্পটি একটি বৃহৎ প্রকল্প। এই সেতুটি হবে ডবল লেনের। একসাথে দুইটি বাস-ট্রাক বা অন্য যে কোন যানবাহন আসা-যাওয়া করতে পারবে। এলজিইডি কর্তৃপক্ষ এই সেতুর নির্মাণ কাজ খুব দ্রুত উদ্বোধন করার জন্য চেষ্টা করছেন। সম্ভবত আগামী মার্চের প্রথম সপ্তাহেই উদ্বোধন হতে পারে।’
তবে স্থানীয় সংসদ সদস্য ইঞ্জিনিয়ার মোয়াজ্জেম হোসেন রতন বলেন,‘যাদুকাটা নদীর উপর সেতু নির্মাণ হলে ধর্মপাশা, তাহিরপুর, মধ্যনগরসহ জেলাবাসীর দীর্ঘদিনের দাবি পূরণ হবে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার প্রতিশ্রুত প্রকল্প এটি। তিনি হাওরবাসীর উন্নয়নে আন্তরিক। চলতি ফেব্রুয়ারি মাসেই এই সেতু নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করবেন তিনি। এই সেতু নির্মাণের ফলে যোগাযোগ ও ব্যবসার দ্বার উন্মোচন হবে, উন্নয়নের বিপ্লব হবে। ’