শেষ হলো সুনামগঞ্জ জেলা সাহিত্য মেলা/ কবি কন্ঠে স্বরচিত কবিতা পাঠ

স্টাফ রিপোর্টার
সুনামগঞ্জ জেলার বিশিষ্ট কবিদের উপস্থিতিতে সাংস্কৃতিক রাজধানী হিসেবে পরিচিত সুনামগঞ্জে অনুষ্ঠিত হলো সুনামগঞ্জ জেলা সাহিত্য মেলা। দুই দিনব্যাপী মেলার শেষ দিন কবি কন্ঠে কবিতা ও ছড়া পাঠ অনুষ্ঠিত হয়। এছাড়াও ছিল কথা সাহিত্যিকদের ছোটগল্প ও উপন্যাস এবং নাট্যকারদের নাটক থেকে পাঠ। এতে জেলার প্রায় অর্ধশত কবি, সাহিত্যিক অংশ নেন। বিশিষ্ট কবিদের উপস্থিতিতে বিমুগ্ধ এক আবহের সৃষ্টি হয়েছিল জেলা শিল্পকলা একাডেমির হাছনরাজা মিলনায়তনে। কবি-সাহিত্যিকদের নিয়ে এমন বড় মাপের উৎসব সুনামগঞ্জে এর আগে আর হয়নি। তাই আয়োজনকে ঘিরে স্থানীয় কবি-সাহিত্যিকদের মধ্যে ব্যাপক উৎসাহ ছিল।
আয়োজকরা জানান, স্থানীয় কবি-সাহিত্যিকরা সাধারণত প্রচারের আলোর বাইরে থাকেন। তাঁদের সৃষ্টিকর্ম জাতীয় পর্যায়ে তুলে ধরতে সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের পৃষ্ঠপোষকতা, বাংলা একাডেমির সমন্বয় এবং সুনামগঞ্জ জেলা প্রশাসনের ব্যবস্থাপনায় এই আয়োজন।
বৃহস্পতিবার বেলা ১১টা থেকে দিনব্যাপি অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন জেলা স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-পরিচালক কবি মোহাম্মদ জাকির হোসেন।


স্বরচিত কবিতা পাঠ করেন ইকবাল কাগজী, সুখেন্দু সেন, কুমার সৌরভ, কল্লোল তালুকদার, পঙ্কজ শীল, এসডি সুব্রত, ফাতিন ইশতিয়াক ফয়সাল, অনুকূল দেবনাথ, মো. রহিম উদ্দিন রাজু, ধীরেন্দ্র দেব নাথ শ্যামল, গিলেমান আলম, অসীম সরকার, জেনারুল ইসলাম, অজয় রায়, মো. আবু তালহা, শ্যামসুন্দর দে রাধেশ্যাম, রবীন্দ্র চন্দ্র দাশ, শাহজালাল সুমন, আহমদ আলী আনোয়ার, উপানন্দ দাস, অনুপ তালুকদার, বাদল চন্দ্র বর্মন, অজয় রায়, বান্টি দেব, হাফিজুর রহমান, নাসরিন আক্তার রুবি, জান্নাত আরা খান, ইয়াকুব শাহরিয়ার, মাহমুদ আলী, বিশ্বজিৎ রায় প্রমুখ।


অনুষ্ঠানের দ্বিতিয়ার্ধে ভাটি অঞ্চলের শক্তিমান কবি ইকবাল কাগজীকে ভাষা, সাংস্কৃতিক বিচ্ছন্নতা ও বাঙালি মুসলমানের নামায়ন বিষয়ক মৌলিক গবেষণায়, মোস্তাক আহমাদ দিন কে কবিতায় এবং মকদ্দুস আলম উদাসী কে বাউল গবেষণায় মরণোত্তর সম্মাননা প্রদান করা হয়।
সুনামগঞ্জ জেলা সাহিত্য মেলা নিয়ে কবি সুখেন্দু সেন বলেন, প্রথমবারের মতো সরকারি উদ্যোগে মেলায় জেলার অধিকাংশ কবি সাহিত্যিক জমায়েত হয়েছেন। সুনামগঞ্জে অনেক কবি সাহিত্যিক আছেন যারা নিরবে সাধনা করেন। এই মেলার মাধামে কবি সাহিত্যিকদের মধ্যে একটা মেলবন্ধন সৃষ্টি হবে বলে আমি বিশ্বাস করি। জেলা পর্যায়ে এই ধরণের উদ্যোগ খুবই প্রশংসনীয়। এই ধারাটা অব্যাহত থাকুক, যাতে কবি সাহিত্যিকদের সৃষ্টি সম্ভার সকলের দৃষ্টিগোচর হয়।
বিকালে অনুষ্ঠিত হয় মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।