শোক সংবাদ

জমিরা খাতুন
দোয়ারাবাজার উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও উপজেলা আ.লীগের আহ্বায়ক অধ্যক্ষ ইদ্রিস আলী বীরপ্রতিক এর মাতা জমিরা খাতুন (১০৫) শনিবার ভোর ৫ ঘটিকায় বাংলাবাজার ইউনিয়নের বড়খাল গ্রামে নিজ বাড়িতে ইন্তেকাল করেছেন (ইন্নালিাহি…রাজিউন)। মৃত্যুকালে তিনি ৪ ছেলে ২ মেয়ে নাতি-নাতনিসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন।  শনিবার বিকাল ৫ টায় বড়খাল জামে মসজিদ মাঠে জানাযা শেষে তার পারিবারিক কবরস্থানে দাফন সম্পন্ন করা হয়।
এদিকে উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান এর মাতার মৃত্যুতে শোক ও শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর শোক ও সমবেদনা প্রকাশ করেছেন ছাতক-দোয়ারাবাজারের সংসদ সদস্য মুহিবুর রহমান মানিক, জেলা পরিষদ সদস্য সেলিম আহমদ, ছাতক উপজেলা পরিষদ ভাইস চেয়ারম্যান আবু সাদত লাহিন, দোয়ারাবাজার উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম আহব্বায়ক আব্দুল খালেক, ছাতক উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম আহব্বায়ক সৈয়দ আহমদ, দোহালিয়া ইউপি চেয়ারম্যান কাজী আনোয়ার মিয়া আনু, লক্ষ্মীপুর ইউপি চেয়ারম্যান আমিরুল হক, বাংলাবাজার ইউপি চেয়ারম্যান জসিম আহমদ চৌধুরী রানা, নরসিংপুর ইউপি চেয়ারম্যান মো. নুরুদ্দিন আহমদ, আ.লীগ নেতা  আহাম্মদ আলী আপন, আ.লীগ নেতা রুটারিয়ান হাজী নুরুল ইসলাম, উত্তর খুরমা ইউপি চেয়ারম্যান বিলাল আহমদ, ছাতক উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক জাউয়া ইউপি চেয়ারম্যান মুরাদ হোসেন, দোয়ারাবাজার মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুল মালেক, যুবলীগ নেতা সাবেক ইউপি সদস্য বুলবুল আহমদ, কৃষকলীগের আব্বায়ক শহিদুল ইসলাম, টিচার ট্রেনিং কলেজ সিলেট ট্রেইনার আবুল কাশেম,পল্লী বিদ্যুতের এলাকা পরিচালক আক্তার হোসেন, দোয়ারাবাজার প্রেসক্লাব নেতৃবৃন্দ ও উপজেলার সকল ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টারের উদ্যোক্তাবৃন্দ।
আব্দুল কদ্দুস
জগন্নাথপুর পৌর শহরের ইকড়ছই সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষিকা নাসিমা বেগমের পিতা ও জগন্নাথপুর পৌর শাখা স্বেচ্ছাসেবক  লীগের আহবায়ক ছালিক আহমদ পীরের শ্বশুর পৌর এলাকার পশ্চিম ভবানীপুর গ্রামের বাসিন্দা আব্দুল কদ্দুস (খোয়াজ আলী) শনিবার বেলা ১১টার দিকে নিজবাড়িতে  ইন্তেকাল করেছেন  (ইন্না…রাজিউন)। মৃত্যুকালে তার বয়েস হয়েছিল ৬৭ বছর। তিনি দীর্ঘদিন ধরে বাধ্যকজনিত রোগে ভোগছিলেন। বাদ আসর মরহুমের নামাজে জানাজা শেষে গ্রামের পঞ্চায়িতী কবর স্থানে দাফন করা হয়েছে। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, ১ ছেলে ৪ মেয়েসহ অসংখ্যা গুণগ্রাহী রেখে গেছেন।  
মরহুমের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছেন জগন্নাথপুর পৌরসভার মেয়র আব্দুল মনাফ, জগন্নাথপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম রিজু, কলকলিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল হাসিম, উপজেলা পরিষদের সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান মুক্তাদীর আহমদ মুক্তা, উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সম্পাদক সিরাজ উদ্দিন মাস্টার, সাংবাদিক তাজউদ্দিন আহমদ, সাংগঠনিক সম্পাদক জয়দ্বীপ সুত্রধর বীরেন্দ্র, পৌর কাউন্সিলর আবাব মিয়া, সোহেল আহমদ, ইকড়ছই সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি হাজী ইকবাল হোসেন ভূঁইয়া, বিদ্যালয়ের প্রধাণ শিক্ষক জলাল উদ্দিনসহ বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষ।  
আশরাফুল আলম নবীন
জগন্নাথপুর উপজেলার সাবেক প্রাণি সম্পদ কর্মকর্তা ডা: আশরাফুল আলম নবীন (৬০) হঠাৎ করে হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে মারা গেছেন (ইন্না…রাজিউন)।
তিনি রবিবার রাত ১১টার দিকে উপজেলা পশু হাসপাতাল ভবনের দ্বিতীয় তলায় নিজকক্ষে ইন্তেকাল করেন। তার মৃত্যুর খবরের সত্যতা নিশ্চিত করে  জগন্নাথপুর উপজেলা প্রাণি সম্পদ কর্মকর্তা ডাঃ কামরুল আহমদ খান বলেন, মরহুমের লাশ তার গ্রামের বাড়ি টাঙ্গাইলের নাগেরপুর উপজেলায় পাঠানো হয়েছে।
ডাঃ আশরাফুল আলম নবীন পরিবার পরিজন নিয়ে জগন্নাথপুরে বসবাস করে আসছিলেন। তিনি জগন্নাথপুর থেকে পদোন্নতি নিয়ে সিলেটের জেলা প্রাণি সম্পদ কর্মকর্তা হিসেবে কর্মরত ছিলেন।
মরহুমের মৃত্যুর খবর পেয়ে জগন্নাথপুরের উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাসহ সরকারি বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তা কর্মচারি মরহুমের বাসভবনে ছুটে আসেন।
জগদীশ সুত্রধর
জগন্নাথপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক পৌরশহরের জগন্নাথপুর গ্রামের বাসিন্দা জয়দ্বীপ সুত্রধর বীরেন্দ্র’র পিতা জগদীশ সুত্রধর (৭৫) পরলোক গমন করেছেন। রবিবার দিবাগত সাড়ে নয়টার দিকে তিনি নিজবাড়িতে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, ২ ছেলে ও ২     
মেয়েসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। রাত ৪ টার লাশের সৎকার করা হয়েছে।  
আওয়ামীলীগ নেতার পিতার মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছেন,  সুনামগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি সাবেক এমপি মতিউর রহমান, সুনামগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগ সাবেক সহ-সভাপতি সিদ্দিক আহমদ, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নুরুল হুদা মুকুট, সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবদুস সামাদ আজাদের পুত্র আজিজুস সামাদ ডন, সুনামগঞ্জ পেরৈসভার মেয়র আইয়ুব বখত জগলু, জেলা আওয়ামীলীগ সাধারণ সম্পাদক ব্যারিষ্টার এম এনামুল কবির ইমন, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সভাপতি নুরুল ইসলাম, জগন্নাথপুর উপজেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি আকমল হোসেন, জগন্নাথপুর পৌরসভার মেয়র আব্দুল মনাফ, সাবেক পৌর মেয়র আক্তার হোসেন, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম রিজু, উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি সৈয়দ সাব্বির আহমদ, আওয়ামীলীগ নেতা শহিদুল ইসলাম বকুল, কলকিলয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সিরাজুল ইসলাম, সাবেক চেয়ারম্যান আঙ্গুর মিয়া,  উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সম্পাদক সাবেক পৌর কাউন্সিলর লুৎফুর রহমান, সিরাজ উদ্দিন মাস্টার, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান বিজন কুমার দেব, উপজেলা পরিষদের সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান মুক্তাদীর আহমদ মুক্তা, জগন্নাথপুর প্রেসক্লাব’র সহ-সভাপতি তাজউদ্দিন আহমদ, কলকলিয়া শাহজালাল মহাবিদ্যালয়ের অধ্যক্ষ ও লেখক আব্দুর নুরু, উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক মুজিবুর রহমান মুজিব, উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক কবীর আহমদ, হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদের সাধারণ সম্পাদক সুধাংশু শেখর রায় ব্চ্চাু, জগন্নাথপুর উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদ ভারপ্রাপ্ত সভাপতি সতীশ গোস্বামী সাধারণ সম্পাদক প্রণব কুমার বণিক, কালীবাড়ি কালি মন্দির উন্নয়ন ও পরিচালনা কমিটির সভাপতি সমির মোহন দেব, জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম’র সম্পাদক অমিত দেব, বার্তা সম্পাদক আলী আহমদ, পৌর কাউন্সিলর সোহেল আহমদ, গিয়াস উদ্দিন, দেলোয়ার হোসাইন, দ্বীপক গোপ, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাবেক আহবায়ক হাবিবুর রহমান, যুগ্ম সম্পাদক কালি কুমার রায়, উপজেলা যুবলীগ সভাপতি কামাল উদ্দিন, সহ-সভাপতি মাহবুবুর রহমান, ভূঁইয়া, সাইফুল ইসলাম রিপন, সাধারণ সম্পাদক আবুল হোসেন লালন, যুবলীগ নেতা বিভাস দেব, আব্দুল কাইয়ুম, পৌর স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাবেক আহবায়ক ছালিক আহমদ, সদস্য সচিব কবির আহমদ, জগন্নাথপুর বাজার ব্যবস্থাপনা কমিটির সাধারণ সম্পাদক জাহির উদ্দিন, বণিক সমিতির সহ-সভাপতি আমিনুল ইসলাম, সাংবাদিক গোবিন্দ দেব, আজহারুল হক ভূঁইয়া, তরুণ ব্যবসায়ী ও সমাজকর্মী জামাল উদ্দিন বেলাল, উপজেলা ছাত্রলীগ সভাপতি সাফরোজ ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক রোমেন আহমদ প্রমুখ।