সন্তানকে হত্যা করল মা, আদালতে স্বীকারোক্তি

ছাতক প্রতিনিধি
ছাতকে বালতির পানিতে ডুবিয়ে শিশু কন্যাকে হত্যার অভিযোগে ছাতক থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। নিজ শিশু কন্যাকে হত্যার দায়ে শিশুটির মা ইয়াসমিন বেগমকে আটক করেছে পুলিশ। থানা পুলিশের কাছে নিজ শিশু কন্যা ২৭ দিন বয়সী ফাতেহা বেগমকে হত্যার কথা স্বীকার করে ইয়াসমিন বেগম। এ ঘটনায় এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।
জানা যায়, সোমবার রাতে উপজেলার গোবিন্দগঞ্জ-সৈদেরগাঁও ইউনিয়নের দক্ষিণ চাকলপাড়া গ্রামে এ মর্মান্তিক ঘটনাটি ঘটেছে। রাতে শিশু কন্যার পিতা গাড়ি চালক আব্দুস শহিদ বাড়িতে এসে বিছানায় সন্তানকে না দেখে তার স্ত্রীকে শিশু সন্তানের কথা জিজ্ঞাসা করে।
এসময় তার স্ত্রী কোন জবাব না দিলে রান্না ঘরে গিয়ে বালতির পানিতে শিশু কন্যাকে ডুবন্ত অবস্থায় দেখতে পেয়ে থানা পুলিশে খবর দেয় সে। মঙ্গলবার সকালে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে শিশুর লাশ উদ্ধার করে মর্গে প্রেরণ করে। এ ঘটনায় সন্দেহভাজন হিসেবে শিশু কন্যার মা ইয়াসমিন বেগম, চাচী চামেলী বেগম, চাচা সুলতান মিয়া ও দাদা আসক আলীকে আটক করে পুলিশ। এ ঘটনায় শিশু কন্যার পিতা আব্দুস শহিদ বাদী হয়ে মঙ্গলবার রাতে ছাতক থানায় একটি হত্যা মামলা(নং-১২) দায়ের করেন। বুধবার শিশুকন্যার মা ইয়াসমিন বেগমকে সুনামগঞ্জ আদালতে প্রেরণ করা হলে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দিতে নিজ শিশুকন্যাকে হত্যার কথা স্বীকার করে সে। স্থানীয় লোকজন ও পুলিশের ধারণা স্বামী-স্ত্রীর কলহের জের ধরে এ হত্যাকান্ড ঘটতে পারে। ছাতক থানার ওসি আতিকুর রহমান ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেছেন।