সম্মেলনকে ঘিরে চাঙা শান্তিগঞ্জ আ.লীগ/ মান্নান ও ডন সমর্থকদের আলাদা প্রস্তুতি

শান্তিগঞ্জ প্রতিনিধি
শান্তিগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন ১৫ নভেম্বর (মঙ্গলবার)। সম্মেলনকে ঘিরে বিভক্তি তৈরি হয়েছে নেতা কর্মীদের মধ্যে। পরিকল্পনা মন্ত্রী এমএ মান্নান এমপি’র বাসভবনকে ঘিরে একাংশ এবং আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য আজিজুস সামাদ ডনের পৃষ্ঠপোশকতায় আরেকাংশের অবস্থান। সম্মেলন সফল করতে আলাদা আলাদা প্রস্তুতি সভাও করেছে দুইপক্ষ।
মন্ত্রী এমএ মান্নানের বাড়ীর বাংলো ‘আরফান আলী বৈঠক খানায়’ শনিবার দুপুরে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের নেতৃত্বে প্রস্তুতি সভা হয়েছে। অন্যদিকে গত বুধবার জয়কলস ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান মাসুদ মিয়ার বাড়িতে আজিজুস সামাদ ডন বলয়ের প্রস্তুতি সভা হয়েছে।
২০১৬ সালে শান্তিগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন শেষে এই উপজেলায় আব্দুল হেকিমকে সভাপতি ও আতাউর রহমানকে সাধারণ সম্পাদক করে কমিটি গঠন হয়েছিল। ৭৩ সদস্যের এই কমিটির অনেকেই এখন আর দলের কার্যক্রমে নেই। বিদেশে চলে যাওয়া, মারা যাওয়া এবং নিস্ক্রিয় হয়ে যাওয়ায় কমিটিতে সক্রিয় রয়েছেন হাতেগুনা কয়েকজন। উপজেলায় সংগঠনের কার্যক্রম অনেকটা পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নানের একান্ত রাজনৈতিক সচিব ও উপজেলা আওয়ামীলীগের উপ-দপ্তর সম্পাদক মো. হাসনাত হোসেনকে ঘিরে। শনিবারের সম্মেলন প্রস্তুতি সভাও ডাকা হয় সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক ও হাসনাত হোসেনের আহ্বানে।
উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল হেকিম এর সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক আতাউর রহমানের সঞ্চালনায় প্রস্তুতি সভায় বক্তব্য রাখেন জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক হায়দার চৌধুরী লিটন, সাংগঠনিক সম্পাদক সিরাজুর রহমান সিরাজ, সদস্য সুবীর তালুকদার বাপ্টু, আবুল কালাম, রেজাউল আলম নিক্কু, হাসনাত হোসেন, নূর হোসেন, আব্দুল বারী সুজন প্রমুখ। প্রস্তুতি সভায় ডন সমর্থকেরা উপস্থিত হন নি।
এই অংশের নেতা অ্যাড. বোরহান উদ্দিন দোলন বললেন, সম্মেলনের প্রস্তুতি সভা উপ-দপ্তর সম্পাদক হাসনাত হোসেন ডাকায় আমরা ওই সভায় যাই নি। গেল বুধবারই সম্মেলনের প্রস্তুতি সভা উপজেলার জয়কলস ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান মাসুদ মিয়া বাড়ীতে করেছি আমরা। আমাদের সভায় সাবেক ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান জিতু, উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি গোলাম হায়দার, আব্দুল্লা মিয়া, নিজাম উদ্দিন, ওবায়দুর রহমান কুবাদ, রাশিকুল ইসলাম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।
দোলন জানালেন, সম্মেলনে আজিজুস সামাদ ডন সমর্থকরা আলাদা জমায়েত করে যাবে। ব্যানার ফেস্টুনে বঙ্গবন্ধু, শেখ হাসিনা ও আজিজুস সামাদ ডনের ছবি থাকবে।
উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল হেকিম বললেন, উপজেলা সম্মেলনের প্রস্তুতি সভা কারোর একজনের নামে ডাকা হয় নি। সভাপতি, সম্পাদক এবং উপ-দপ্তর সম্পাদকের নামে সভা ডাকা হয়েছে, যাতে সকলেই উপস্থিত থাকেন।
উপ-দপ্তর সম্পাদক হাসনাত হোসেন বললেন, শান্তিগঞ্জে পরিকল্পনা মন্ত্রী এম এ মান্নানের বাড়ী। এখানকার প্রত্যেকটি গ্রামে জনাব এমএ মান্ননের চেষ্টা ও দিক নির্দেশনায় এখন আওয়ামী লীগের ঘাটি। সম্মেলনে হাজার হাজার কর্মী এসে উপস্থিত হবেন।
উপজেলা সম্মেলন হলেও এখানে কাউন্সিল অধিবেশন করার সুযোগই নেই বললেন দায়িত্বশীলরা।
উপ-দপ্তর সম্পাদক হাসনাত হোসেন জানালেন, কোন ইউনিয়নেই সংগঠনের সম্মেলন হয় নি, কমিটিও নেই। এই অবস্থায় কাউন্সিলের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে হবে কেন্দ্রীয় ও জেলা নেতারা।
সম্মেলনে সভাপতি হতে আগ্রহীরা হলেন, বর্তমান সভাপতি আব্দুল হেকিম, রেজাউল আলম নিক্কু, অ্যাড. বোরহান উদ্দিন দোলন, আসাদ মিয়া, সিতাংশু দেব ও আব্দুল কাইয়ুম এবং সাধারণ সম্পাদক পদে হাসনাত হোসাইন, আতাউর রহমান ও ইকবাল হোসেন’এর নাম শোনা যাচ্ছে।
শান্তিগঞ্জ উপজেলা আওয়ামীলীগের সম্মেলনে পরিকল্পনামন্ত্রী মন্ত্রী এম এ মান্নান ছাড়াও কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য জাহাঙ্গীর কবির নানক, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুল আলম হানিফ, দলের সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেনসহ জেলা নেতারা উপস্থিত থাকবেন। সম্মেলন হবে শান্তিগঞ্জ বাজারের পুরোনো পুলিশ ফাঁড়ির মাঠে।