সরকারকে গবেষণা খাতে ব্যয় বাড়াতে হবে -ড. সিদ্দিকী

স্টাফ রিপোর্টার
সুনামগঞ্জের কৃতী সন্তান, প্রবাসী বিজ্ঞান, অস্ট্রেলিয়ার গ্রিফিথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ড. জহিরুল আলম সিদ্দিকী বলেছেন, ‘গবেষণা বিষয়ে বাংলাদেশের সরকারের দৃষ্টিভঙ্গির পরিবর্তন করা প্রয়োজন এবং এই খাতে বরাদ্দ বাড়াতে হবে। প্রতিটি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিটি বিভাগকে শুধুমাত্র গবেষণার জন্য আলাদা করে বছরে কমপক্ষে এক কোটি টাকা বরাদ্দ দিতে হবে। গবেষণা খাতে ব্যয় বাড়ালেই নতুন কিছু উদ্ভাবন সম্ভব।’ সোমবার রাত ৮ টায় সুনামগঞ্জ শহরের শহীদ মুক্তিযোদ্ধা জগৎজ্যোতি পাঠাগারে সুধীজনদের সঙ্গে মতবিনিময় সভায় ড. জহিরুল আলম সিদ্দিকী এমন মন্তব্য করেন।
ড. সিদ্দিকী বলেন, ‘মৌলিক বিষয়ে সকলকেই ঐক্যমতে থাকতে হবে, যেমন বাংলাদেশ, মুক্তিযুদ্ধ, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এগুলো নিয়ে ভিন্নমত থাকার সুযোগ নেই। বিভ্রান্তি ছড়ানোও কাম্য নয়।’
নতুন প্রজন্মের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন,‘ইচ্ছা ও কাজের মধ্যে সততা থাকলে লক্ষ্যে পৌঁছানো সহজ হবে।’
তিনি বলেন, ‘দেশপ্রেম থাকতে হবে, বাংলাদেশের মেধাবীরা দেশে থাকছে না, অন্যদেশে গিয়ে সার্ভিস দিচ্ছে, আমার     
নিজের ক্ষেত্রে তাই ঘটেছে, দেশের কথা মাথায় রাখছে না মেধাবীরা, উপার্জিত অর্থও দেশে পাঠাচ্ছে না, দেশে আসেও না, আসলেও দেশের সম্পদ বিক্রি করে টাকা বিদেশে নিয়ে যাচ্ছে, এটি কাম্য নয়।’
নি¤œ মধ্যবিত্তের সন্তান হিসাবে নিজের শিক্ষা সংগ্রামের কথা জানিয়ে ড. সিদ্দিকী বলেন, ‘আমি রিসার্চ করছি চাকুরির অংশ হিসাবে, রোজগারের জন্য নয়, চাকুরি জীবনে আমি সৎ থাকার চেষ্টা করেছি, বাকী জীবনও সততার পথেই হাঁটবো।’
তিনি জানান,ক্যান্সার সনাক্ত করণের ডিভাইস আবিস্কার তাঁর প্রাথমিক কাজ, তিনি আরো অনেক বিষয় নিয়েই কাজ করতে চান।
ড. সিদ্দিকী জানার জন্য সকলকে পড়াশুনা করারও আহ্বান জানান।
মতবিনিময় সভা সঞ্চালনা করেন জগৎজ্যোতি পাঠাগারের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট সালেহ্ আহমদ। সভার শেষ পর্যায়ে ড. সিদ্দিকী’র হাতে জগৎজ্যোতি পাঠাগারের পক্ষ থেকে ফুল এবং সুনামগঞ্জের লেখকদের মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক বই তুলে দেন পাঠাগারের সহ-সভাপতি পৌর মেয়র আয়ুব বখ্ত জগলুল, সহ সভাপতি অ্যাডভোকেট স্বপন কুমার দেব ও অ্যাডভোকেট বজলুল মজিদ চৌধুরী খসরু এবং অ্যাডভোকেট সালেহ আহমদসহ সুধীজনেরা।