সরকারি হওয়া কলেজগুলোর কর্মচারীদের ৫ দফা দাবি

সু.খবর ডেস্ক
সদ্য সরকারি হওয়া কলেজগুলোর ৩য়-৪র্থ শ্রেণির কর্মচারীরা তাদের চাকুরি সরকারি করার দাবি জানিয়েছেন। তাদের দাবি, দু’দশকেরও বেশি সময় ধরে বেসরকারি কলেজে কর্মরত থাকার পরও তারা এখনো মানবেতর জীবনযাপন করছেন। কলেজ সরকারি হলেও সরকারি হতে পারেননি তারা। তাদের চাকুরি সরকারিকরণসহ পাঁচ দফা দাবি জানিয়েছেন কর্মচারীরা।
রবিবার জাতীয় প্রেস ক্লাবে ‘বাংলাদেশ সরকারি কলেজ বেসরকারি কর্মচারী ঐক্য পরিষদে’র ব্যানারে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলন থেকে তারা এ দাবি জানান।
সংগঠনের সভাপতি সাইফুল ইসলাম বলেন, জাতীয়করণকৃত সারাদেশে ৩৮১টি কলেজে ১৫ হাজারেরও বেশি কর্মচারী কর্মরত রয়েছেন। তারা ওইসব কলেজে দীর্ঘদিন ধরে চাকরি করে আসলেও এখন পর্যন্ত তাদের চাকুরি রাজস্ব খাতে নেওয়া হয়নি। একই পদে সরকারি কলেজের কর্মচারীরা ২০ থেকে ২৫ হাজার টাকা মাসিক বেতন পেলেও জাতীয়করণভুক্ত কলেজের কর্মচারীরা মাত্র ৩ থেকে ৫ হাজার টাকা বেতন পাচ্ছেন। এ কারণে তারা পরিবার নিয়ে মানবেতর জীবনযাপন করছেন। এ বেতন গার্মেন্ট শ্রমিকদের বেতন থেকেও অনেক কম দেওয়া হচ্ছে। কর্মচারীদের চাকুরির কোনো নিশ্চয়তাও নেই।
তিনি বলেন, কর্মচারীদের যোগদানের তারিখ থেকে চাকুরি সরকারিকরণসহ পাঁচ দফা দাবি উত্থাপন করছেন তারা। এগুলো হলো- কর্মচারীরা সরকরি না হওয়া পর্যন্ত তাদের সরকারি বেতন স্কেলে বেতন প্রদান, কর্মচারীদের চাকরি সরকারিকরণ না হওয়া পর্যন্ত নতুন নিয়োগ বন্ধ, নতুন পদ সৃষ্টি করে স্ব-স্ব পদে নিয়োগ ও পদোন্নতি দিয়ে শুন্যপদ বন্ধ না করার দাবি জানানো হয়েছে।
সংগঠনের নেতারা বলেন, সরকারি কলেজে প্রতিনিয়ত শিক্ষার্থীর সংখ্যা বাড়ছে। নতুন বিভাগ খুলে শিক্ষক নিয়োগ দেওয়া হচ্ছে। কিন্তু পরিতাপের বিষয় দীর্ঘদিন ধরে এই কর্মচারীদের জন্য নতুন কোন পদ সৃষ্টি হচ্ছে না। কোন সুযোগ-সুবিধাও বাড়ছে না। এমনকি তাদের নির্দিষ্ট কোন কর্মঘণ্টাও নেই, তাই দিনরাত তাদের কাজ করতে হয়।
তারা বলেন, দীর্ঘদিন সরকারিকরণের আকাঙ্খা নিয়ে দিনরাত কাজ করে আসলেও তাদের আজও সরকারিকরণ করা হয়নি। গত ১৭ সেপ্টেম্বর প্রধানমন্ত্রীর দফতরে স্মারকলিপি দেওয়া হয়েছে। দেশের সকল জেলা প্রশাসক ও সংসদ সদস্যদের প্রতি স্মারকলিপি দেওয়া হবে বলেও জানান সংগঠনের নেতারা।
সূত্র : সমকাল