সিলেটে যেতে শুরু করেছেন নেতাকর্মীরা

রাসু.খবর রিপোর্ট
জ্বালানি তেলের অস্বাভাবিক মূল্যবৃদ্ধি, লোডশেডিং, গণপরিবহনের ভাড়া ও নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যেমূল্যে বৃদ্ধির প্রতিবাদে এবং বিভিন্ন দাবিতে আগামীকাল শনিবার সিলেটে বিএনপির বিভাগীয় সমাবেশ অনুষ্ঠিত হরে। সমাবেশ সফল করার লক্ষ্যে সুনামগঞ্জে নির্বিঘেœ প্রচারণা শেষ করে সিলেট আলিয়া মাদ্রাসা মাঠে ‘সুনামগঞ্জ বিএনপি ক্যাম্প’ এ যাত্রা শুরু করেছেন বিএনপি নেতাকর্মীরা। এদিকে বৃহস্পতিবার হঠাৎ করে ৩৬ ঘন্টার ধর্মঘটের ডাক দিয়েছে সুনামগঞ্জ জেলা পরিবহন মালিক ও শ্রমিক সমিতি। শুক্রবার সকাল ৬টা থেকে শনিবার সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত ধর্মঘট চলবে। ধর্মঘটের প্রেক্ষিতে সড়কপথ ছাড়াও নৌপথেও সিলেটে যাচ্ছেন নেতাকর্মীরা। সুনামগঞ্জ বিএনপি সূত্র জানায়, সুনামগঞ্জ থেকে ৫০ হাজার নেতাকর্মী সমাবেশে যোগদান করবেন।
এর আগে গত আট নভেম্বর বিএনপির সিলেট বিভাগীয় সমাবেশ সফল করার লক্ষে সুনামগঞ্জে প্রচারপত্র বিলি শুরু করেন সংগঠনের কেন্দ্রীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য ডা. মঈন খান, কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, সাংগঠনিক সম্পাদক ডা. শাখাওয়াত হাসান জীবন। এরপর উপজেলা ও ইউনিয়ন পর্যায়ে চলে প্রচারপত্র বিলির কাজ।
সুনামগঞ্জ জেলার বিএনপির সূত্র জানায়, সমাবেশে বাধা দিতে বাস ধর্মঘটের ডাক দেয়া হয়েছে। ধর্মঘট দিয়ে আমাদের সমাবেশে যাওয়া বন্ধ করতে পারবে না সরকার। সমাবেশ সফল করার লক্ষে সুনামগঞ্জ থেকে ৫০ হাজার নেতাকর্মীরা সিলেটে যাবেন। ইতোমধ্যে জেলার বিভিন্ন উপজেলার নেতাকর্মীরা ট্রলার, স্টিল বডি নৌকা দিয়ে সিলেটের পথে রওনা হয়েছে।
শহরের বৈঠাখালী এবং সাহেব বাড়ি ঘাটে গিয়ে দেখা যায়, নেতাকর্মীরা ধানের শীষ হাতে নিয়ে ইঞ্জিন চালিত নৌকা ও স্টিলবডি নৌকা দিয়ে সিলেটে যাচ্ছেন। এসব নেতাকর্মী শুক্রবার সকালে সিলেটে পৌঁছাবেন বলে জানালেন জেলা বিএনপির নেতা রাকাব উদ্দিন। তিনি বলেন, দুর্গম তাহিরপুর, ধর্মপাশা, মধ্যনগর উপজেলার বিএনপির নেতাকর্মীরা নৌকাযোগে সিলেটের সমাবেশ সফল করার লক্ষে যাত্রা শুরু করেছেন।
বিশ্বম্ভপুর উপজেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক মো. নজরুল ইসলাম বলেন, শুনেছি পরিবহন মালিকরা দুই দিনের অবরোধের ডাক দিয়েছেন। তাই আজকেই (বৃহস্পতিবার) সম্মেলনে যোগ দিতে সিলেটে যাচ্ছি। সেখানে আলিয়া মাদ্রাসা মাঠে আমার উপজেলার ক্যাম্পে অবস্থান করবো।
শান্তিগঞ্জ উপজেলা বিএনপির সভাপতি ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ফারুক আহমদ বলেন, মানুষের সাংবিধানিক অধিকার ফিরিয়ে আনার জন্য বিএনপি লড়াইয়ে অবতীর্ণ হয়েছে। দেশের মানুষকে নিয়ে আমরা অবশ্যই এ সংগ্রামে বিজয়ী হবো।
সুনামগঞ্জ জেলা বিএনপির সহ সভাপতি আনছার উদ্দিন বলেন, পরিবহন ধর্মঘট দিয়ে বিএনপির এ জনস্রোত আটকে রাখা যাবে না। সরকারের নির্দেশে পরিবহন মালিকরা যে অবরোধের ডাক দিয়েছে তা উপেক্ষা করে হাজার হাজার নেতাকর্মী শনিবারের সম্মেলনে যাবেন। আমার উপজেলা শান্তিগঞ্জ থেকে কম করে হলেও দুই হাজার নেতা-কর্মীরা সিলেটে যাবেন। ইতোমধ্যে অনেকে চলেও গেছেন।
সুনামগঞ্জ জেলা বিএনপির সিনিয়র সহ সভাপতি দেওয়ান জয়নুল জাকেরীন বলেন, সিলেটের সমাবেশকে সফল করতে আমরা বিভিন্ন কৌশল অবলম্বন করছি। ধর্মঘট আর পুলিশের ভয় দেখিয়ে আমাদের সমাবেশে যাওয়া বন্ধ করতে পারবে না সরকার। যে কোন ভাবেই আমরা সিলেটে গিয়ে পৌঁছব।
সুনামগঞ্জ জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. নুরুল ইসলাম নুরুল বলেন, অন্যান্য বিভাগীয় সমাবেশেও ধর্মঘট দিয়ে বাধা দেয়া হয়েছে। আমাদেরকেও বাধা দিতে বাস ধর্মঘটের ডাক দেয়া হয়েছে।
তিনি বলেন, শুক্রবার বেলা ১১টায় সাত থেকে আট হাজার মোটরসাইকেল নিয়ে সিলেটের উদ্দেশ্যে শান্তির্পূণ ভাবে যাত্রা শুরু করবো। রাস্তায় পুলিশ বাধা দিলে আমরা তাদের প্রতিহত করে সমাবেশে যোগ দেব। তিনি বলেন, সুনামগঞ্জ থেকে ৫০ হাজার নেতাকর্মী সিলেটের সমাবেশে যোগদান করবেন।