সুনামগঞ্জে কেন্দ্র বাড়ল ২০টি

বিশেষ প্রতিনিধি
একাদশ জাতীয় নির্বাচনের প্রস্তুতি শুরু করেছে জেলা নির্বাচন অফিস। ইতিমধ্যে জেলার ৫ টি আসনের ভোট কেন্দ্র নির্ধারণের কাজ সম্পন্ন করেছে উপজেলা নির্বাচন অফিসগুলো। জেলায় বিগত জাতীয় নির্বাচনে ভোট কেন্দ্র ছিল ৬৪৬, এবার বেড়ে হয়েছে ৬৬৬ টি।
উপজেলা নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা গেছে, জেলার দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলায় ৩ টি কেন্দ্র বেড়েছে। এগুলো হলো- শিমুলবাঁক ইউনিয়নের কান্দাগাঁও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, জয়কলস ইউনিয়নের ডুংরিয়া উচ্চ বিদ্যালয়, পূর্বপাগলা ইউনিয়নের কারারগাঁও মাদ্রাসা কেন্দ্র।
সুনামগঞ্জ সদর উপজেলায় কেন্দ্র বেড়েছে ৯ টি। এগুলো হচ্ছে- জাহাঙ্গীরনগর ইউনিয়নের আমপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, জরজরিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, সুরমা ইউনিয়নের মুসলিমপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, সুনামগঞ্জ পৌর এলাকার জলিলপুর পৌর প্রাথমিক বিদ্যালয়, কালীপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, বড়পাড়া আব্দুর রহমান পৌর প্রাথমিক বিদ্যালয়। বুলচান্দ উচ্চ বিদ্যালয় এবং ষোলঘর দ্বীনি সিনিয়র মাদ্রাসা কেন্দ্রকে পুরুষ-মহিলা আলাদা করে দুটি কেন্দ্র বাড়ানো হয়েছে, মোহাম্মদপুর ব্লু স্কাই একাডেমীতে নতুন কেন্দ্র করা হয়েছে। এছাড়া হাসননগর আসাদিয়া মাদ্রাসা ভবনের নির্মাণ কাজ চলমান থাকায় পাশের আব্দুল আহাদ-শাহিদা চৌধুরী উচ্চ বিদ্যালয়ে এই কেন্দ্র স্থানান্তর করা হয়েছে।
দোয়ারাবাজার উপজেলায় কেন্দ্র বাড়ানো হয়েছে ৪ টি। এগুলো হলো- দোয়ারা সদর ইউনিয়নের দোয়ারা মডেল উচ্চ বিদ্যালয়, বাংলাবাজার ইউনিয়নের বড়খাল বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়, ভোগলা রুসমত আলী উচ্চ বিদ্যালয় ও সুরমা ইউনিয়নের সমুজ আলী উচ্চ বিদ্যালয়।
ছাতক উপজেলায় কেন্দ্র বেড়েছে ৪ টি। এগুলো হচ্ছে- ছাতক সদর ইউনিয়নের মল্লিকপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, নোয়ারাই ইউনিয়নের কুপিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, সৈদেরগাঁও-গোবিন্দগঞ্জ ইউনিয়নের গুয়াসপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও চরমহল্লা ইউনিয়নের হাজী আব্দুল খালিক উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্র।
জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো. মুরাদ উদ্দিন হাওলাদার বললেন,‘একাদশ জাতীয় নির্বাচনের ভোট গ্রহণের কেন্দ্র নির্বাচন করা হচ্ছে। আগে কেন্দ্র ছিল ৬৪৬ টি, এখন হয়েছে ৬৬৬ টি। গত ৫ আগস্ট ভোট গ্রহণ কেন্দ্রের খসড়া তালিকা প্রকাশ করা হয়েছিল, দাবি-আপত্তি শেষে ৬ সেপ্টেম্বর তা প্রকাশ করা হয়। গত কয়েক দিন হয় আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর পক্ষ থেকেও কেন্দ্রের পরিবেশ দেখার কাজ শুরু হয়েছে।’