সড়কটি আবর্জনা ও ময়লার ভাগাড়

আকরাম উদ্দিন
শহরের মল্লিকপুরে আব্দুজ জহুর সেতুর সংযোগ সড়কের নিচের পুরানো সড়ক এখন ময়লা ও আবর্জনার ভাগাড়ে পরিণত হয়েছে। দীর্ঘদিন ধরে এই পুরানো সড়ক সংস্কার হয়নি। সড়ক সংস্কারের জন্য গত প্রায় ৪ মাস আগে মল্লিকপুর এলাকাবাসীর পক্ষে পৌর কাউন্সিলর আহমদ নুর সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলীর নিকট লিখিত আবেদন দিয়েছেন।
এলাকাবাসী জানান, আব্দুজ জহুর সেতু নির্মাণ হওয়ার পর থেকে সংযোগ সড়কের নীচের উভয় পাশের যাতায়াত সড়ক অবহেলায় পড়ে থাকে। সড়কের বিভিন্ন স্থানে ভাঙন দেখা দেয় এবং ছোট বড় অসংখ্য গর্তের সৃষ্টি হয়। কালীমন্দিরের পাশে এই সড়কের একাধিক স্থানে বড় বড় ভাঙন সৃষ্টি হয়েছে। সামান্য বৃষ্টিতে ছোট-বড় গর্তে পানি জমে কাদার সৃষ্টি হয়ে গাড়ি চলাচলে ও পথচারীদের চলাচলে ভোগান্তি বেড়েছে। সড়কের পাশে শতাধিক দোকানপাটের ময়লা আবর্জনা ফেলা হয় সড়কে। সড়কের পাশে ফেলে রাখা হয়েছে ভাঙাচোরা কয়েকটি গাড়ি। এসব কারণে সড়কটি সংকীর্ণ হয়ে পড়েছে।
এই সড়ক দিয়ে মল্লিকপুর মডেল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী, আইডিয়াল একাডেমির শিক্ষার্থী, জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারী, স্থানীয় শতাধিক ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠানের মালিক-কর্মচারীসহ গাড়ি ও বিভিন্ন শ্রেণী পেশার হাজার হাজার মানুষ চলাচল করেন। মল্লিকপুর আবাসিক এলাকার লোকজনের প্রধান সড়কও এটি।
স্থানীয় বাসিন্দা সাইদুল হক সরকার বলেন,‘এই পুরাতন সড়কটি দীর্ঘদিন ধরে সংস্কার না হওয়ায় বিভিন্ন স্থানে গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। এতে মানুষের ভোগান্তি বেড়েই চলেছে। মানুষের ভোগান্তি কমিয়ে আনতে সড়কের সংস্কার জরুরী প্রয়োজন।’
ব্যবসায়ী ফয়েজুন নুর বলেন,‘এই পুরাতন সড়কের পাশে সরকারী-বেসরকারী কয়েকটি প্রতিষ্ঠান রয়েছে। এরমধ্যে দুইটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। হাজারো শিক্ষার্থীসহ কর্মকর্তা-কর্মচারী ও বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষ এই সড়ক দিয়ে প্রতিদিন চলাচল করেন। সড়কে সংস্কার কাজ না হওয়ায় বিভিন্ন স্থানে সড়কের ভাঙন দেখা দিয়েছে এবং বৃষ্টির পানি জমে কাদার সৃষ্টি হয়েছে।’
পৌর কাউন্সিলর আহমদ নুর বলেন,‘এই সড়ক সংস্কারের জন্য গত প্রায় চার মাস আগে সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলীর নিকট একটি আবেদন দিয়েছি। কিন্তু এরপর আর কোনো কিছু জানতে পারিনি। এই পুরাতন সড়কে সংস্কার কাজ হলে গাড়ি ও মানুষ চলাচল করতে সুবিধা হতো। অপরদিকে সেতুর সংযোগ সড়কে যানজট কমে আসতো। আমরা এই সড়ক সংস্কারের জন্য জোর দাবি জানাই।’
পৌরসভার নির্বাহী প্রকৌশলী মীর মোশারফ হোসেন বলেন,‘এই সড়কের উপর থাকা ময়লা আবর্জনা সরানোর ব্যবস্থা নেয়া হবে।’
সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী শফিকুল ইসলামের সাথে একাধিকবার যোগাযোগ করা হলেও তাঁর মোবাইল ফোনটি বন্ধ পাওয়া যায়।