সড়কের মাঝে বিদ্যুতের খুঁটি, দুর্ঘটনার আশঙ্কা

জামালগঞ্জ প্রতিনিধি
দীর্ঘদিনেও সড়কের মাঝ থেকে বৈদ্যুতিক খুঁটি সরানো হয়নি। এতে শিক্ষার্থী, এলাকাবাসীসহ যানবাহন চলাচলে বাধাগ্রস্ত হচ্ছে। খুঁটি সরাতে কয়েকবার পল্লী বিদ্যুৎ অফিসকে জানানো হলেও খুঁটি সরানোর উদ্যোগ নেয়নি কর্তৃপক্ষ। বৈদ্যুতিক খুঁটির কারণে যে কোন সময় দুর্ঘটনার আশঙ্কা করছেন এলাকাবাসী ও স্কুল কলেজের শিক্ষার্থীরা।
জানা যায়, জামালগঞ্জ উপজেলার সদর ইউনিয়নের মূল সড়ক থেকে জামালগঞ্জ সরকারি ডিগ্রি কলেজের সড়কের মাঝখানে একটি বৈদ্যুতিক খুঁটি রয়েছে। কলেজ কর্তৃপক্ষ এবং এলাকাবাসীর দাবির প্রেক্ষিতে জামালগঞ্জ-সুনামগঞ্জ মূল সড়ক থেকে জামালগঞ্জ চাইল্ড কেয়ার কিন্ডার গার্টেনের পাশ দিয়ে জামালগঞ্জ সরকারী ডিগ্রী কলেজ সড়ক করা হয়। চাইল্ডকেয়ার, সরকারী কলেজ, তেলিয়া নতুনপাড়ার প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীসহ হাজারো মানুষ চলাচল চলাচল করেন এই সড়ক দিয়ে। কিন্তু সড়কের মাঝে বৈদ্যুতিক খুঁটি থাকায় প্রতিদিন রিক্সা অটোরিক্সা, সিএনজিসহ বিভিন্ন যানবাহন চলাচল করতে বিঘœ সৃষ্টি হচ্ছে। যে কোন সময় বড় ধরনের দুর্ঘটনার আশংকা করা হচ্ছে। খুঁটি সরাতে কয়েকবার জামালগঞ্জ পল্লী বিদ্যুৎ অফিসকে জানানো হলেও তারা কোন ব্যবস্থা নিচ্ছেন না।
জামালগঞ্জ চাইল্ড কেয়ার কিন্ডার গার্টেন এর চতুর্থ শ্রেণীর ছাত্রী মেহেজাবিন উসমানী মমি বলেন, আমরা প্রতিদিন এই সড়ক দিয়ে স্কুলে যাতায়াত করে থাকি। সড়কের মাঝে খুঁটি থাকায় কোন রিক্সা বা অটো দিয়ে আসতে পারি না। ঝড় বৃষ্টিতে পায়ে হেঁটে আসতে হয়।
জামালগঞ্জ সরকারী ডিগ্রী কলেজের ভারপাপ্ত অধ্যক্ষ রফিকুল ইসলাম বিন বারী বলেন, প্রায় ১০-১২টি গ্রামের কলেজ পড়–য়া শিক্ষার্থীদের কলেজে ১ কিলোমিটার ঘুরে আসতে হয়। তাই আমরা দীর্ঘদিন যাবত উপজেলা প্রশাসন সহ নেতৃবৃন্দের মাধ্যমে যোগাযোগ করে কলেজে আসার জন্য এই সড়ক অনুমোদন করিয়াছি। উপজেলা প্রশাসনের মূল সড়ক থেকে কলেজ হয়ে হেলিপেড পর্যন্ত সড়ক করা হলেও পথের কাঁটা পল্লী বিদ্যুতের এই খুঁটি। একেবারে সড়কের মাঝখানে খুঁটি থাকায় চলাচল করতে পারছে না শিক্ষার্থী সহ এলাকার লোকজন। আমি উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নিকট জোর দাবি জানাচ্ছি দ্রুত খুঁটি সড়িয়ে সড়ক চলাচলের উপযোগী করার জন্য।
এ ব্যাপারে জামালগঞ্জ জোনাল অফিসের এজিএম আজহারুল ইসলাম বলেন, বৈদ্যুতিক খুঁটি সরানোর আবেদন করলে নিয়ম অনুযায়ী স্থানান্তরের বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।