সড়ক দখল করে সবজি বাজার, ব্যবসায়ীদের সর্তক করলেন এসিল্যান্ড

ধর্মপাশা প্রতিনিধি
সড়কের দক্ষিণপাশে অপরিকল্পিতভাবে ড্রেন নির্মাণ করায় সড়ক অনেকটাই সরু হয়ে গেছে। তবুও ড্রেন ঘেঁষে প্রতিদিন সবজির ফসরা সাজায় কিছু ব্যবসায়ী। বাদ যায় না সড়কের ওপাশ। সেখানেও বসে সবজির দোকান। ফলে সড়কটির জায়গা আরও কমে যায়। সারাদিন ধরে ওইসব অস্থায়ী সবজি বাজারে চলে কেনাবেচা। ক্রেতাদের ভীড়ে সড়ক দিয়ে যানবাহন চলতে গিয়ে সৃষ্টি হয় যানজটের। দীর্ঘ কয়েক মাস ধরে ধর্মপাশা উপজেলার সদর বাজারের প্রধান সড়ক দখল করে অস্থায়ী ও ভ্রাম্যমাণ সবজি ব্যবসায়ীরা তাদের ব্যবসা পরিচালনা করায় পথচারীদের চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। এছাড়াও কাঁচাবাজারের নির্ধারিত স্থানের বাইরে এসব ব্যবসা পরিচালিত হওয়ায় নির্ধারিত স্থানের ব্যবসায়ীরা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন। ফলে ক্ষতিগ্রস্থ ব্যবসায়ীরা রবিববার দুপুরে এ ব্যাপারে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে লিখিত অভিযোগ করেছেন।
ধর্মপাশা গরুহাট্টা এলাকায় কাঁচাবাজারের জন্য নির্ধারিত স্থান রয়েছে। সেখানে স্থায়ী সবজি ব্যবসায়ীরা তাঁদের ব্যবসা কার্যক্রম পরিচালনা করেন। কিন্তু কিছু অসাধু ব্যবসায়ী কয়েক মাস ধরে ধর্মপাশা খাদ্যগুদামের সামনে থেকে মধ্য বাজার হয়ে শয়তানখালী সেতুর ওপর পর্যন্ত সড়কের দুই পাশ দখল করে সবজি ব্যবসা পরিচালনা করে আসছে। ফলে নির্ধারিত স্থানের ক্ষতিগ্রস্ত ব্যবসায়ীদের পক্ষে কবির মিয়া, আলী আজগর, আব্দুর নূর, রোবরহান, সালামসহ কয়েকজন ব্যবসায়ী রোববার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. মুনতাসির হাসানের কাছে সড়কের পাশ থেকে সবজি বাজার সরাতে লিখিতভাবে অভিযোগ করেন। এ অভিযোগের প্রেক্ষিতে ইউএনও সহকারী কমিশনার (ভূমি) রেদুয়ানুল হালিমকে ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ দেন। পরে ওইদিন বিকেল চারটার দিকে এসিল্যান্ড সরেজমিন সেই বাজার পরিদর্শন করে সড়কের দুই পাশে সবজি বাজার না বসাতে ব্যবসায়ীদের সর্তক করেন। সাথে সাথেই সড়কের দুই পাশ থেকে ব্যবসায়ীরা তাদের সবজির দোকান সরিয়ে নেয়।
উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) রেদুয়ানুল হালিম বলেন, ‘সড়ক দখল করে ব্যবসা পরিচালনা করায় জনদুর্ভোগ সৃষ্টি হয়েছিল। এ ব্যাপারে অভিযুক্ত ব্যবসায়ীদের সর্তক করে নির্ধারিত স্থানে ব্যবসা করার জন্য বলা হয়েছে। ভবিষ্যতে সড়ক দখল করে ব্যবসা পরিচালনা করলে তাদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’