সড়ক দুর্ঘটনায় দোয়ারার মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৮

দোয়ারাবাজার প্রতিনিধি
সিলেট মর্মান্তিক সড়ক দুর্ঘটনায় দোয়ারাবাজারের বরসহ একই পরিবারের ৭জন নিহতের পর চিকিৎসাধীন অবস্থায় আরও একজনের মৃত্যু হয়েছে। এনিয়ে মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ৮ জনে।
বরের চাচা আহত নজির আলী (৬৫) সাত দিন মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ে বুধবার রাতে সিলেট এমএ ওসমানী মেডিকেলে চিকিৎসাধিন অবস্থায় মারা যান। বৃহস্পতিবার বিকেলে মুকিরগাঁও গ্রামে তাদের পারিবারিক কবরস্থানে দাফন সম্পন্ন করা হয়।
এদিকে গুরুতর আহত বরের প্রতিবেশী মো. আব্দুল খালেক (৬০) কে তার নাকের হাড় ও মুখের ডান দিকের হাড় ভেঙ্গে যাওয়ায় উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় রেফার করা হয়েছে।
ইউপি সদস্য ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল হান্নান জানিয়েছেন, শুক্রবার সংসদ সদস্য মুহিবুর রহমান মানিকের সহযোগিতায় আব্দুল খালেকে ঢাকায় পাঠানো হয়েছে।
এদিকে শোকাহত পরিবারকে সমবেদনা জানিয়েছেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ ইদ্রিস আলী বীর প্রতীক। শুক্রবার তিনি নিহত সকল পরিবারের বাড়ি বাড়ি গিয়ে শোকাহত পরিবারের খোঁজ খবর নেন এবং সরকারী ভাবে তাদের সহায়তার আশ্বাস দেন।
এসময় সাথে ছিলেন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও ইউপি সদস্য মো. আব্দুল হান্নান, আওয়ামীলীগ নেতা আব্দুল ছাত্তার, আনজব আলী, ইউছুফ আলী জাকির হোসেন, আব্দুল কাদির, সেচ্ছাসেবকলীগ নেতা কামরুজ্জামান রুবেল প্রমুখ।
প্রসঙ্গত, গত ২৬ জুলাই বৃহষ্পতিবার বিকালে উপজেলার নরসিংপুর ইউনিয়নের মুকিরগাও গ্রাম থেকে বিয়ে করার উদ্দ্যেশ্যে নোয়াখালী যাওয়ার পথে সিলেট-ঢাকা মহাসড়কের ওসমানীনগরে ট্রাক ও নোহার মুখোমুখি সংঘর্ষে বর, শিশু ও নারীসহ ৭জন নিহতের ঘটনা ঘটে।
নিহতরা হলেন, উপজেলার নরসিংপুর ইউনিয়নের মুকির গাও গ্রামের মৃত জমির আলীর ছেলে আনসার আলী (বর) (২৬), তার আপন ভাই (গাড়ী চালক) আমীর আলী (৩৫) ও আরব আলী (২০), ভগ্নিপতি ছাতক উপজেলার নোয়ারাই ইউনিয়নের মির্জাপুর গ্রামের মিরাস আলী (৩৫), বরের নিকাটাত্মীয় পারভীন আক্তার (২৭) ও তার শিশু কন্যা জাহানারা বেগম (৫), ফুফাতো ভাই আনফর আলী (২৬)।