হতাশাগ্রস্ত হয়ে মাদক নেওয়ার কোনো যৌক্তিকতাই নেই

সিলেট অফিস
মানুষের জীবনে দুঃখ, কষ্ট, প্রতিবন্ধকতা, হতাশা থাকবেই। তাই বলে হতাশাগ্রস্ত হয়ে মাদক নেওয়ার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। প্রথম আলো ট্রাস্ট আয়োজিত মাদকবিরোধী আন্দোলনের অংশ হিসেবে সিলেট ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটিতে আয়োজিত এক মাদকবিরোধী পরামর্শ সভায় বক্তারা এসব কথা বলেন।
রবিবার দুপুর ১২টায় নগরের শামীমাবাদ এলাকায় বিশ্ববিদ্যালয়ের মিলনায়তনে এ অনুষ্ঠান হয়েছে। এতে প্রায় দেড় শতাধিক শিক্ষার্থী অংশ নেন। শিক্ষার্থীরা অনুষ্ঠানে মাদক ও মনোরোগ নিয়ে নানা প্রশ্ন চিকিৎসকদের করেন। শুরুতেই সংক্ষিপ্ত উদ্বোধনী পর্বে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য মো. শহীদুল্লাহ তালুকদার বক্তব্য দেন।
পরে শিক্ষার্থীদের মাদকের বিরুদ্ধে সচেতন করার পাশাপাশি মানসিক—সমস্যাজনিত নানা বিষয়ে পরামর্শ দেন সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মনোরোগবিদ্যা বিভাগের প্রধান আর কে এস রয়েল ও স্বাস্থ্য কর্মকর্তা রেজওয়ানা হাবীবা এবং নর্থইস্ট মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের মনোরোগবিদ্যা বিভাগের প্রধান মো. আব্দুল্লাহ ছায়ীদ।
শিক্ষার্থীদের প্রশ্নোত্তর পর্ব শেষে সমাপণী পর্বে সিলেট ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির কোষাধ্যক্ষ নিতাই চন্দ ও ডিন আবুল ফতেহ ফাত্তাহ। প্রথম আলো ট্রাস্টের সমন্বয়ক মাহবুবা সুলতানা পুরো অনুষ্ঠান সঞ্চালন করেন। সবশেষে সমাপণী বক্তব্য দেন প্রথম আলো সিলেট কার্যালয়ের ব্যুরো চিফ সুমনকুমার দাশ। অনুষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের ‘চলতি ঘটনা’, ‘কিশোর আলো’ ও ‘বিজ্ঞান চিন্তা’ উপহার দেওয়া হয়।
অনুষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের পাশাপাীশ বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন অনুষদের ডিন, বিভাগীয় প্রধান ও জ্যেষ্ঠ শিক্ষক ও কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। এর মধ্যে আইন অনুষদের ডিন মাহমুদুল হাসান খান, ইংরেজি বিভাগের প্রধান স্বাতী রানী দেবনাথ ও সহকারী অধ্যাপক প্রণবকান্তি দেব, কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের প্রধান এম এ জি আসিফ, ব্যবসায় প্রশাসন বিভাগের প্রধান নাঈমা মাসুদ উল্লেখযোগ্য।