হাওরাঞ্চলে বেশি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে এমপিওভুক্তির দাবি উঠেছে

বিশেষ প্রতিনিধি
হাওরাঞ্চলের জেলা সুনামগঞ্জে অন্যান্য জেলার চেয়ে বেশি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে এমপিওভুক্তির দাবি তুলেছেন সুনামগঞ্জের শিক্ষাবিদসহ সংশ্লিষ্ট সংগঠনের নেতারা। সংশ্লিষ্টরা বলেছেন, নতুন বাজেটে শিক্ষাখাতে বরাদ্দ বেশি হওয়ায় হাওরবাসীর প্রত্যাশাও বেড়েছে। হাওরবাসীর দ্বারা দীর্ঘদিন ধরে কষ্টে-সৃষ্টে টিকিয়ে রাখা নন এমপিও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের এমপিওভুক্তি যেমন তারা চান, তেমনি দীর্ঘদিন ধরে নি¤œমাধ্যমিক হিসাবে পরিচালিত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো মাধ্যমিক পর্যায়ে এমপিওভুক্ত হোক এটাও চান।
জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিস সূত্রে জানা গেছে, সুনামগঞ্জে প্রায় দেড়’শ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এমপিও ভুক্তির জন্য আবেদন করেছে। যার যার মতো চেষ্টাও চালাচ্ছে সবাই।
এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি আবেদন হয়েছে ছাতক উপজেলায়। এই উপজেলায় ২৪ টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তির জন্য আবেদন করেছে। নতুন মাধ্যমিক বিদ্যালয় ৫ টি, নি¤œমাধ্যমিক থেকে মাধ্যমিকে উন্নীত হতে চায় ৫ টি, স্কুল এ- কলেজ ৪ টি এবং মাদ্রাসা ১০ টি। এরপরেই জগন্নাথপুর উপজেলা। এই উপজেলায় ১১ টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তির জন্য আবেদন করেছে। এরমধ্যে নতুন ৪ টি, নি¤œমাধ্যমিক থেকে মাধ্যমিকে উন্নীত হতে চায় ১ টি, মাদ্রাসা ২ টি এবং নতুন কলেজ ৪ টি। প্রবাসী অধ্যূষিত এই দুই উপজেলার এসব প্রতিষ্ঠান ৩ থেকে ১০ বছর ধরে স্থানীয় ধনাঢ্যদের সহযোগিতায় চলছে। প্রতিষ্ঠানগুলো এমপিওভুক্ত না হলে অনেকগুলোরই ভবিষ্যত অনিশ্চিত হয়ে পড়বে।
দোয়ারাবাজারে এমপিওভুক্তির জন্য আবেদন করেছে ১০ টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। এরমধ্যে নতুন মাধ্যমিক বিদ্যালয় ২ টি, নতুন কলেজ ৩ টি এবং মাদ্রাসা ৩ টি। নি¤œমাধ্যমিক থেকে মাধ্যমিকে উন্নীত হবার আবেদন করেছে আরও ২ টি বিদ্যালয়।
বিশ্বম্ভরপুরে ৩ টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তির আবেদন করেছে। নি¤œমাধ্যমিক থেকে মাধ্যমিক স্তরে উন্নীতের আবেদন করেছে ২ টি। এছাড়া ১ টি মাদ্রাসা এমপিওভুক্তির আবেদন করেছে।
দক্ষিণ সুনামগঞ্জে ৮ টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তির আবেদন করেছে। নতুন ৩ টি এবং নি¤œমাধ্যমিক থেকে মাধ্যমিকে উন্নীতের আবেদন করেছে ৪ টি এবং ১ টি কলেজ এমপিওভুক্তির আবেদন করেছে।
দিরাই উপজেলায় এমপিওভুক্তির আবেদন করেছে ৬ টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। এরমধ্যে নতুন মাদ্রাসা ১ টি, স্কুল দুটি, ডিগ্রি কলেজ ১ টি এবং নি¤œমাধ্যমিক থেকে মাধ্যমিকে উন্নীত হতে চায় ২ টি।
শাল্লায় ৬ টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তির জন্য আবেদন করেছে। এরমধ্যে নতুন ১ টি এবং নি¤œমাধ্যমিক থেকে মাধ্যমিক উন্নীত হতে চায় ৪ টি, এছাড়া স্কুল এন্ড কলেজ ১ টি।
ধর্মপাশায় ৯ টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তির জন্য আবেদন করেছে। এরমধ্যে নতুন ২ টি, নি¤œমাধ্যমিক থেকে মাধ্যমিকে উন্নীত হতে চায় ৬ টি এবং ১ টি কলেজ এমপিওভুক্তির আবেদন করেছে।
জামালগঞ্জে এমপিওভুক্তির আবেদন করেছে ৪ টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। এরমধ্যে নতুন ১ টি, নি¤œমাধ্যমিক থেকে মাধ্যমিকে উন্নীতকরণ চায় ২ টি এবং মাদ্রাসা ১ টি।
তাহিরপুরে এমপিওভুক্তির আবেদন করেছে ৯ টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। এরমধ্যে নতুন ১ টি, নিম্মমাধ্যমিক থেকে মাধ্যমিকে উন্নীতকরণ চায় ৭ টি এবং মাদ্রাসা ১ টি।
বাংলাদেশ বেসরকারি শিক্ষক-কর্মচারী ফোরামের কেন্দ্রীয় কমিটির সহসভাপতি ও জেলা শাখার সভাপতি মোদাচ্ছের আলম সুবল বলেন, ৩ থেকে ১০ বছর ধরে বিনা বেতনে বা নামে মাত্র সম্মানীতে শিক্ষকতা করে প্রতিষ্ঠান টিকিয়ে রেখেছেন সুনামগঞ্জের অনেক শিক্ষক। এখন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকার বাজেটে শিক্ষাখাতে বেশি বরাদ্দ রাখায় শিক্ষকদের মনে আশার সঞ্চার হয়েছে। যারা আবেদন করেছে, সকলেই মনে করছে তাঁদের স্কুল এমপিওভুক্ত হবে। দীর্ঘদিনের পরিশ্রমের প্রতিষ্ঠান আলোর মুখ দেখবে। সুনামগঞ্জ জেলা হাওর এবং দুর্গম বিবেচনায় এনে, এই জেলায় বেশি সংখ্যক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত করা হোক।
সুনামগঞ্জ জেলা বেসরকারি মাধ্যমিক শিক্ষক সমিতির সভাপতি ইনচান মিঞা বলেন, দুর্গম অঞ্চলে অনেক কষ্টে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলেছেন আমাদের সহকর্মী ও শিক্ষানুরাগীরা। এগুলো এবার এমপিওভুক্ত না হলে অনেকগুলোই হয়তো টিকে থাকবে না।
বাংলাদেশ কলেজ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সভাপতি শুভঙ্কর তালুকদার মান্না বলেন, আমরা শহরের একটি কলেজ (পৌর কলেজ) কত কষ্ট করে দাঁড় করিয়েছি, যারা প্রথম থেকে যুক্ত ছিলাম এখনো সেটি অনুধাবন করি। সুনামগঞ্জের প্রত্যন্ত গ্রামে এ ধরনের একটি প্রতিষ্ঠান যারা বছরের পর বছর বাঁচিয়ে রেখেছেন, তাঁরা নিশ্চয়ই বড় ত্যাগ স্বীকার করেছেন। সুযোগ হলে এমন প্রতিষ্ঠানগুলোকে অবশ্যই এমপিওভুক্ত করা প্রয়োজন।
সুনামগঞ্জ সরকারি কলেজের অব. অধ্যক্ষ শিক্ষাবিদ পরিমল কান্তি দে বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং সুনামগঞ্জের কৃতী সন্তান মাননীয় পরিকল্পনামন্ত্রী’র মুখ থেকে আমরা প্রায়ই শুনি হাওরাঞ্চলের নানা উন্নয়নের কথা, এই অঞ্চলবাসীর জন্য তাঁর ভালবাসার কথা। হাওর-পাহাড় ও চরাঞ্চলের জন্য এই সরকার আন্তরিক। হাওরাঞ্চলের অনেক স্থানই রয়েছে যেখানে শিক্ষার্থী কিংবা শিক্ষকের প্রতিষ্ঠানে যাওয়াই অনেক কষ্টের। এসব এলাকায় কোন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান মানুষের কষ্টে গড়ে ওঠলে সেগুলোকে টিকিয়ে রাখতে সরকারি আনুকূল্য দরকার।
জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা জাহাঙ্গীর আলম জানালেন, সুনামগঞ্জে প্রায় ১৫০ টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তির জন্য আবেদন করেছে। আবেদনকারীরা যার যার মতো করে যোগাযোগ রাখছেন সংশ্লিষ্ট উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সাথে। জেলার ভৌগোলিক অবস্থানসহ সামগ্রিক বিবেচনায় এই জেলায় বেশি স্কুল এমপিওভুক্ত হোক এটি আমরাও চাই।