হারভেস্টার ক্রয়ের জন্য উপজেলা চেয়ারম্যানদের অনুরোধ জেলা প্রশাসকের

স্টাফ রিপোর্টার
চলতি বোরো মওসুমে সুনামগঞ্জের হাওরাঞ্চলের পাকা ধান দ্রুত কেটে তোলার জন্য উপজেলা পরিষদের নিজস্ব তহবিল থেকে ধান কাটার যন্ত্র কেনার সুপারিশ করা হয়েছে।
সম্প্রতি বিষয়টি নিয়ে জেলা উন্নয়ন সমন্বয় সভায় সিদ্ধান্ত গৃহিত হয় এবং দ্রুত পদক্ষেপ নেয়ার জন্য জেলার সকল উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানকে অনুরোধ জানিয়েছেন জেলা প্রশাসক।
জেলা প্রশাসকের কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, গত ১৫ এপ্রিল জেলা উন্নয়ন সমন্বয় সভায় জগন্নাথপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আতাউর রহমান জানান, নলুয়ার হাওরে বিআর-২৮ জাতের পরিপক্ক ধান শ্রমিকের অভাবে কাটা সম্ভব হচ্ছে না। এসময় সভায় উপস্থিত সকল সদস্যগণ জানান, ধান কাটার শ্রমিক সংকট রয়েছে সারা জেলায় । হাওরের কৃষকরা শ্রমিক সংকটের কারণে ধান কাটতে পারছেন না।
সভায় উপস্থিত উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানগণসহ সবাই জানান, ধান কাটার যন্ত্র অনেক দামী ও ব্যববহুল যা সাধারণ কৃষকদের পক্ষে এককভাবে ক্রয় করা মোটেও সম্ভব নয়। তাই উপজেলা পরিষদের নিজস্ব তহবিল থেকে দ্রুত ধান কাটার যন্ত্র ক্রয় করে তা কৃষকদের মাঝে ভাড়া প্রদানের দাবি জানান এবং সভায় প্রস্তাবটি গৃহিত হয়।
পরদিন এ ব্যাপারে দ্রুত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য জেলার সকল উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যানকে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য অনুরোধ জানান জেলা প্রশাসক।
জামালগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. শামীম আল ইমরান বলেন,‘ জেলা প্রশাসক স্যারের এই প্রস্তাবটি খুবই সময় উপযোগি। প্রতিটি হাওরেই শ্রমিক সংকট বিরাজ করছে। ইতোমধ্যে ভর্তুকির মাধ্যমে কৃষকদের মাঝে বেশ কিছু ধান কাটার আধুনিক যন্ত্র প্রদান করা হয়েছে। কৃষকরা এসব যন্ত্র দিয়ে ধান কাটছেন।’
তাহিরপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কামরুজ্জামান কামরুল বলেন,‘ হাওরের ধান কাটার যন্ত্র কিনে তা কৃষকদের মধ্যে ভাড়া প্রদানের বিষয়ে জেলা প্রশাসকের চিঠি পেয়েছি। উপজেলা পরিষদের সভা ডেকে দ্রুত তা বাস্তবায়নের উদ্যোগ নেয়া হবে।’
তিনি আরও জানান, সারা জেলার ৮টি কম্বাইন্ড হারভেস্টার যন্ত্রের মধ্যে একটি তাহিরপুরে আনা হয়েছে। ওই যন্ত্রটি দিয়ে প্রতিদিন হাওরের বিভিন্ন এলাকার কৃষকেরা ধান কাটছেন। পাশাপাশি ব্যক্তি উদ্যোগেও ৮ টি ছোট হারভেস্টার যন্ত্র কেনা হয়েছে এবং সেগুলো দিয়ে হাওরের ধান কাটা হচ্ছে। এতে করে শ্রমিক সংকটে কৃষকরা অনেক উপকৃত হচ্ছে।
জেলা প্রশাসক মো. সাবিরুল ইসলাম বলেন,‘ সুনামগঞ্জের হাওরাঞ্চলের মানুষ সংগ্রামী। গত বছর সব ধান হারিয়ে নানা দুঃখ কষ্টে এবারো হাওরে ধান চাষ করেছেন। ধানের ফলনও ভাল হয়েছে। বিভিন্ন হাওরে শ্রমিক সংকটের কারণে পাকা ধান কাটা সম্ভব হচ্ছে না বলে খবর পাওয়া যাচ্ছে, তাই হাওরাঞ্চলের পাকা ধান দ্রুত কেটে তোলার জন্য উপজেলা পরিষদের নিজস্ব তহবিল থেকে ধান কাটার যন্ত্র কেনার সুপারিশ করা হয়েছে। পাশাপাশি ধনাঢ্য ও স্বাবলম্বী কৃষকদের আধুনিক ধান কাটা যন্ত্র ক্রয় করে সাধারণ কৃষকদের জন্য ভাড়া প্রদানের অনুরোধ করছি।’



আরো খবর