১৫ নভেম্বর চালু হতে পারে বর্ডার হাট

বিশেষ প্রতিনিধি
ভারত ও বাংলাদেশ সরকারের সংশ্লিষ্ট উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের অনুমতি পেলে খুলে দেওয়া হতে পারে সুনামগঞ্জ সীমান্তের বর্ডারহাটগুলো। দোয়ারাবাজারের বাগানবাড়ি ও সুনামগঞ্জ সদরের ডলুরা বর্ডার হাট কমিটির বৈঠকে বুধবার এমন সিদ্ধান্ত হয়েছে। বৈঠকে উপস্থিত দায়িত্বশীলরা জানিয়েছেন, অনুমতি পেলে আগামী ১৫ নভেম্বর খুলতে পারে বর্ডার হাট।
সুনামগঞ্জ সীমান্তেরর ডলুরা এলাকায় ২০১২ সালের ২৪ এপ্রিল গড়ে ওঠা দেশের ২য় ডলুরা- বালাট বর্ডার হাট সুনামগঞ্জ সীমান্তের জনপ্রিয় বর্ডার হাট। প্রতি মঙ্গলবার এই হাট বসতো। করোনাকালে সেটি বন্ধ ছিল। এপারের ২৫ জন দোকানী এবং ওপারের ২৫ জন দোকানী এই হাটে বিক্রেতা হিসাবে বসেন।
সুনামগঞ্জের দোয়ারাবাজার সীমান্তের বাগানবাড়ী বর্ডার হাট ও তাহিরপুরের লাউড়েরগড় বর্ডারহাটও গেল ২৬ মার্চে স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তির অনুষ্ঠানে দুই দেশের প্রধানমন্ত্রী উদ্বোধন ঘোষণা করেছিলেন। কিন্তু করোনার কারণে কোনটাই চালু হয় নি।
সুনামগঞ্জ সদরের ডলুরা বর্ডার হাটে বুধবার দুই দেশের বর্ডারহাট কমিটি বৈঠকে বসেন। বাংলাদেশের পক্ষে উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট অসিম চন্দ্র বণিক, সুনামগঞ্জ সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইমরান শাহরিয়ার, দোয়ারাবাজার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা দেবাংশু কুমার সিনহা, জেলা রেভিনিউ ডেপুটি কালেক্টর আব্দুল কাদির, সহকারী পুলিশ সুপার বিল্লাল হোসাইন, সুনামগঞ্জ সদর থানার ওসি শহীদুর রহমান, নারায়ণতলা বিজিবি’র নায়ক সুবেদার খাদেমুল ইসলাম, দোয়ারাবাজারের বোগলাবাজার ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান চেয়ারম্যান আরিফুল ইসলাম জুয়েল ও জাহাঙ্গীরনগর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মুখসেদ আলী।
বৈঠকে ভারতীয় হাইকমিশনের সিলেট উপ-হাইকমিশনের দ্বিতীয় সচিব টিজি রমেশ উপস্থিত ছিলেন। এছাড়া ভারতের পক্ষে হিস্ট খাসি হিল জেলার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক, সহকারী পুলিশ সুপারসহ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।
দোয়ারাবাজারের বাগানবাড়ি বর্ডার হাট কমিটির সদস্য ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আরিফুল ইসলাম জুয়েল জানান, দুই দেশের বর্ডার হাট কমিটির বৈঠকে কবে বর্ডার হাট চালু করা যায় এই বিষয়ে আলোচনা হয়েছে। মন্ত্রণালয়সহ উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের অনুমতি পেলে ১৫ নভেম্বর হাট চালু করার প্রস্তাব হয়েছে। ডলুরা বর্ডার হাটে দুই দেশের ২৫ জন বিক্রেতার স্থলে ৫০ জনে উন্নীত করার প্রস্তাব করা হয়েছে। হাট উদ্বোধনের আগে প্রয়োজনীয় সংস্কার ও মেরামত করার দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে পরিচালনা কমিটিকে। এছাড়া সপ্তাহে একদিনের স্থলে হাট দুই দিন বসানো যায় কি-না এই প্রস্তাব নিয়েও আলোচনা হয়েছে। আরিফুল ইসলাম জানান, তাহিরপুরের লাউড়েরগড় বর্ডারহাট ভারতের অন্য জেলার সীমানায় হওয়ায় ওই হাটের পরিচালনা কমিটির দায়িত্বশীলরা বুধবারের সভায় উপস্থিত ছিলেন না।
উল্লেখ্য, ২০১৮ সালে শুরু হয় দুই দেশের সীমান্তর তাহিরপুরের লাউড়েরগড় বর্ডার হাট ও দোয়ারাবাজার উপজেলার বাগানবাড়ীতে বর্ডারহাট নির্মাণের কাজ। গত ২৬ মার্চ এই হাটগুলো উদ্বোধন হয়েছে। করোনার কারণে এখনো হাট বসে নি।

জেলা প্রশাসক ও জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মো. জাহাঙ্গীর হোসেন বলেছেন, দুই দেশের বর্ডার হাট কমিটির বৈঠক হয়েছে। উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের অনুমতি সাপেক্ষে যতদ্রুত সম্ভব আমরা বর্ডার হাট খুলে দেয়ার চেষ্টা করছি।