২৪ ঘন্টার মধ্যে চেয়ারম্যানকে ডাকঘর ছাড়ার নির্দেশ

ধর্মপাশা প্রতিনিধি
দৈনিক সুনামগঞ্জের খবরে সংবাদ প্রকাশের পর ধর্মপাশা উপজেলার মধ্যনগর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান প্রবীর বিজয় তালুকদার মধ্যনগর ডাকঘরে লাগানো নিজস্ব শীতাতপ নিয়ন্ত্রণ যন্ত্র (এসি) সরিয়ে নিয়েছেন। তবে চেয়ারম্যান এবং মধ্যনগর বিপি হাই স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ এখনও ডাকঘরেই বসবাস করছেন। ময়মনসিংহ ডাক বিভাগের ডেপুটি পোস্ট মাস্টার জেনারেল চেয়ারম্যান ও অধ্যক্ষকে ২৪ ঘন্টার মধ্যে ডাকঘর ছাড়ার নির্দেশ দিয়ে মধ্যনগর ডাকঘরের পোস্ট মাস্টারকে চিঠি দিয়েছেন।
জানা যায়, প্রবীর বিজয় তালুকদার ২০১৬ সালে মধ্যনগর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান হিসেবে নির্বাচিত হন। নির্বাচিত হওয়ার ছয় মাস পরে মধ্যনগর পোস্ট অফিসের পোস্ট মাস্টার গণেশ চন্দ্র সরকারের কাছ থেকে পোস্ট মাস্টারের আবাসিক কক্ষগুলো ভাড়া নেন। চেয়ারম্যানের পাশাপাশি অন্য একটি কক্ষে মধ্যনগর বিপি হাই স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ বিজন কুমার তালুকদারও দীর্ঘ বছর ধরে বসবাস করছেন। মাস তিনেক আগে চেয়ারম্যান তার থাকার ঘরে একটি এসি লাগিয়েছিলেন। এ নিয়ে গত বৃহস্পতিবার দৈনিক সুনামগঞ্জের খবরে ‘ডাকঘরে এসি লাগিয়ে ইউপি চেয়ারম্যানের বসবাস’ শিরোনামে সংবাদ প্রকাশিত হয়। পরে গত রোববার চেয়ারম্যান এসি খুলে নিয়েছেন।
প্রবীর বিজয় তালুকদার জানান, তিনি নিজ
উদ্যোগে এসি সরিয়ে নিয়েছেন। তবে কবে তিনি ডাকঘর ছাড়ছেন সে বিষয়টি স্পষ্ট করেননি।
এ ব্যাপারে বিজন কুমার তালুকদারের সাথে কথা বলতে তার মুঠোফোন নম্বরে যোগাযোগ করা হলে তিনি ফোন রিসিভ করেননি।
মধ্যনগর পোস্ট অফিসের পোস্ট মাস্টার খন্দকার শহিদুল আলম বলেন, ‘২৪ ঘন্টার মধ্যে ডাকঘর থেকে চেয়ারম্যান ও অধ্যক্ষ যেন অন্যত্র চলে যান সে ব্যাপারে ব্যবস্থা নিতে বিভাগীয় পোস্ট মাস্টার জেনারেল আমাকে লিখিতভাবে নির্দেশ দিয়েছেন। আমি সে মোতাবেক ব্যবস্থা নিচ্ছি। অবশ্যই তাদেরকে ডাকঘর ছেড়ে দিতে হবে।’