৫ম শ্রেণির আগেই ৮ম শ্রেণি পাস

এনামুল হক এনি, ধর্মপাশা
ধর্মপাশা উপজেলার সুখাইড় রাজাপুর উত্তর ইউনিয়নের সুখাইড় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দপ্তরী কাম নৈশ প্রহরী বিপ্লব দাসের বিরুদ্ধে ভুয়া সনদপত্র দিয়ে সাড়ে চার বছর ধরে চাকরি করছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। সনদপত্র অনুযায়ী তিনি ৫ম শ্রেণি পাসের আগেই ৮ম শ্রেণি পাস করেছেন। বিপ্লব দাস ওই ইউনিয়নের সুখাইড় গ্রামের অনাদি রঞ্জন দাসের ছেলে। সোমবার বিকেল ৩টায় একই গ্রামের মো. আইন উদ্দিনের ছেলে মো. আমিনুল ইসলাম (পল্টু) উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে এ ব্যাপারে লিখিত অভিযোগ করেছেন।
জানা যায়, বিপ্লব দাস ২০১৩ সালের ১ অক্টোবর ধর্মপাশা উপজেলার সুখাইড় রাজাপুর উত্তর ইউনিয়নের সুখাইড় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দপ্তরী কাম নৈশ প্রহরী হিসেবে যোগদান করেন। ওই বছরের ১৪ জানুয়ারি উপজেলা শিক্ষা কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত নিয়োগ পরীক্ষায় তিনি নিয়োগ কমিটির কাছে অষ্টম শ্রেণি পাসের একটি সনদপত্র দেখান। সনদপত্রটি তিনি ২০১২ সালের ৭ জানুয়ারি সুনামগঞ্জের দোয়ারাবাজার উপজেলার আমাবাড়ি উচ্চ বিদ্যালয় থেকে সংগ্রহ করেছেন। এই সনদপত্র অনুযায়ী তিনি ২০০৭ সালে অষ্টম শ্রেণি পাস করেন। কিন্তু বিপ্লব সুখাইড় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে পরের বছর অর্থ্যাৎ ২০০৮ সালে পঞ্চম শ্রেণি পাস করেছেন বলে নিশ্চিত করেছেন সুখাইড় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক।
অভিযোগকারি মো. আমিনুল ইসলাম (পল্টু) বলেন, ‘আমিসহ ওই নিয়োগ পরীক্ষায় ৮জন অংশগ্রহণ করেছিলাম। আমরা কেউ উত্তীর্ণ হয়নি। কিন্তু ভুয়া সনদপত্র দিয়ে বিপ্লব দাসের চাকরি কিভাবে হয়েছে বুঝতে পারিছ না। বিষয়টি তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হউক।’
এ ব্যাপারে বিপ্লব দাসের মুঠোফোন বন্ধ থাকায় তার বক্তব্য জানা সম্ভব হয়নি। তবে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রনজয় কুমার তালুকদার বলেন, ‘বিপ্লব ২০০৮ সালে এ বিদ্যালয় থেকেই পঞ্চম শ্রেণি পাস করেছে। নিয়োগ পরীক্ষার সময় শুধুমাত্র অষ্টম শ্রেণি পাসের সনদপত্র দেখা হয়েছিল বলে বিষয়টি কারও নজরে পড়েনি।’
উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা জালাল উদ্দিন বলেন, ‘আমি এখানে নতুন এসেছি। বিষয়টি আমার জানা নেই।’
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মামুন খন্দকার বলেন, ‘এ সংক্রান্ত একটি অভিযোগ পেয়েছি। বিষয়টি তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’