৫ সেতু’র হাইড্রোলজি মরকোলজি এসেসম্যান্ট শুরু

বিশেষ প্রতিনিধি
সুনামগঞ্জের ৫ টি গুরুত্বপূর্ণ সেতুর সম্ভাব্যতা যাচাইয়ের অংশ হিসাবে হাইড্রোলজি-মরকোলজি (প্রাণী বিজ্ঞান ও নদী বিজ্ঞান সম্পর্কিত তথ্য) পরীক্ষার কাজ শুরু করেছেন প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি বিশেষজ্ঞদল। বুধবার এঁরা ছাতকে সুরমা নদীর উপর গণেশপুর গ্রামের পাশের একটি সেতু’র সম্ভাব্যতা যাচাইয়ের কাজ শেষ করেছেন। বৃহস্পতিবার সকালে দিরাইয়ের মার্কুলিতে কুশিয়ারা নদীর উপর এবং ধলবাজারের পাশে সরলিটোপা নদীর উপর সেতু নির্মাণ এবং বিকালে সুরমা নদীর উপর সাচনা-জামালগঞ্জ সেতু’র সম্ভাব্যতা যাচাই করেছেন। আজ (শুক্রবার) এই বিশেষজ্ঞ প্রকৌশলীরা সুনামগঞ্জে সুরমা নদীর ধারারগাঁও-হালুয়ারঘাট সেতু’র সম্ভাব্যতা যাচাই করবেন। গুরুত্বপূর্ণ এই ৫ সেতু নির্মাণ হলে যোগাযোগ ব্যবস্থায় যেমন সুনামগঞ্জের জন্য যুগান্তকারী হবে তেমনি ব্যবসা বাণিজ্যও সম্প্রসারিত হবে।
এলজিইডি’র এক দায়িত্বশীল প্রকৌশলী জানান, ছাতকে সুরমা নদীর উপর সড়ক ও জনপথ বিভাগের উদ্যোগে একটি সেতুর কাজ চলছে। এই সেতু ছাতক শিল্প শহরের একাংশকে যুক্ত করবে। কিন্তু ছাতকের গনেশপুরে সুরমা নদীর উপর আরেকটি সেতু হলে ছাতক – কোম্পানীগঞ্জ-সিলেটসহ সারাদেশের সঙ্গে সরাসরি যোগাযোগের আরেকটি সড়ক হবে। ছাতকের আরেকটি অংশের ব্যবসা-বাণিজ্য সম্প্রসারিত হবে। ওই দিক দিয়ে শিল্প কারখানাও গড়ে ওঠবে। এই সেতু নির্মাণে ৮০ থেকে ১০০ কোটি টাকা ব্যয় হবে।
বুধবার প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক শাজাহান মন্ডলের নেতৃত্বে ২ জন সহযোগি অধ্যাপক এই সেতু’র হাইড্রোলজি-মরকোলজি পরীক্ষার কাজ করেছেন।
এই তিন প্রকৌশলী বৃহস্পতিবার সকালে দিরাইয়ের মার্কুলিতে কুশিয়ারার উপর সেতু এবং দিরাই-মার্কুলি সড়কের সরলিটোপা নদীর উপর সেতু নির্মাণের জন্য হাইড্রোলজি-মরকোলজি পরীক্ষা করেছেন। বিকালে এঁরা সাচনা-জামালগঞ্জকে যুক্ত
করতে সুরমা নদীর উপর সেতু নির্মাণের জন্য হাইড্রোলজি-মরকোলজি পরীক্ষা সম্পন্ন করেছেন।
এই তিনটি সেতুর মধ্যে প্রথম দুটি’র নির্মাণে ১৬০ কোটি টাকার মতো লাগবে। সাচনা-জামালগঞ্জ সেতু নির্মাণে ৮০ থেকে ১০০ কোটি টাকা ব্যয় হবে। মার্কুলিতে সুরমা নদীর উপর এবং সরলিটোপায় সেতু হলে দিরাইয়ের সঙ্গে বানিয়াচঙ উপজেলাসহ হবিগঞ্জ হয়ে ওই দিক দিয়ে রাজধানীর সঙ্গে দিরাই-শাল্লার যোগাযোগ সহজ হবে। সুরমা নদীর সাচনা-জামালগঞ্জ অংশে সেতু হলে সুনামগঞ্জ-সাচনা-জামালগঞ্জ যোগাযোগ ব্যবস্থা সম্প্রসারিত হবে। একই সঙ্গে জামালগঞ্জ-ধর্মপাশা সড়ক হলে এই সেতু দিয়েই সুনামগঞ্জ-জামালগঞ্জ- নেত্রকোণা যাতায়াত করা সম্ভব হবে।
সুনামগঞ্জের ধারারগাঁও-হালুয়ারঘাট এলাকায় সুরমা নদীর উপর সেতু নির্মাণ করার জন্য হাইড্রোলজি-মরকোলজি পরীক্ষা হবে আজ (শুক্রবার)।
এই সেতু নির্মাণ হলে সুনামগঞ্জসহ সারা দেশের সঙ্গে সুনামগঞ্জ শহরের পাশ দিয়ে বয়ে যাওয়া সুরমা নদীর উত্তর পাড়ের ৬ টি ইউনিয়নবাসীর যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়ন ঘটবে। সুনামগঞ্জ সীমান্তের ডলুরায় ইমিগ্রেসনসহ শুল্ক বন্দর হলে এই সেতু দুই দেশের যোগাযোগ ব্যবস্থায় উন্নয়ন ঘটাতেও কাজে লাগবে।
সুনামগঞ্জ এলজিইডির নির্বাহী প্রকৌশলী ইকবাল আহমদ বলেন,‘গুরুত্বপূর্ণ এই ৫ সেতু’র হাইড্রোলজি-মরকোলজি পরীক্ষার কাজ করছেন প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রকৌশলীগণ। এই ৫ সেতু কেবল যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়ন নয়, এর ফলে জেলাব্যাপি ব্যবসা-বাণিজ্যও সম্প্রসারিত হবে।’