৭০ ভাগ কাজ করে শতভাগ বিল

পি সি দাশ শাল্লা
শাল্লা সদরে ২০১৭-২০১৮ অর্থ বছরে এডিপির ১ কোটি ৯ লাখ টাকার ১ কিলোমিটার আরসিসি রাস্তার কাজ ৭০ ভাগ সম্পন্ন হলেও শত ভাগ অর্থ উত্তোলন করেছে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান। কাজের মান খুবই খারাপ। বালি পাথরে মাটি মিশ্রিত করে কম সিমেন্টে ঢালাই করা হচ্ছে। গত জুন মাসে শত ভাগ কাজের অর্থ উত্তোলন করেছে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান আর আর এন্টারপ্রাইজ।
ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের মালিক মো. সোহরাব মিয়া সংশ্লিষ্টদের যোগসাজসে সবার চোখের সামনে রাস্তায় নি¤œমানের কাজ করছেন বলে বাজারের ব্যবসায়ীদের অভিযোগ। এ নিয়ে এলাকার অনেকেই প্রতিবাদ করলেও কোন প্রকার প্রতিকার হয়নি।
শাল্লা ইউপি’র সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুস সাত্তার জানান, আমি দীর্ঘ দিন ঠিকাদারী কাজ করেছি। তাই বুঝতে পারছি রাস্তার কাজের গুণগতমান খুবই খারাপ হচ্ছে। এজন্য আমি বার বার ঠিকাদার সোহরাব মিয়া ও এলজিইডি অফিসের লোকজনের সাথে আলোচনা করেছি কাজটি ভাল করার জন্য।
তিনি আরো জানান, যে রাস্তাগুলো জরুরী করার দরকার সেই রাস্তা না করে অধিক মুনাফার লোভে যেখানে কাজ পরে করলে হত সেই রাস্তাগুলোর কাজ করা হচ্ছে। খুবই গুরুত্বপুর্ণ মুক্তিযোদ্ধা ভবনের সামনা হতে থানা মসজিদ পর্যন্ত প্রায় ৩০০ মিটার এবং সোনালী ব্যাংকের পাশে ৩০ মিটার রাস্তার কাজ এখনও শুরুই হয়নি।
ঠিকাদার সোহরাব মিয়া বলেন, ‘বাজার হওয়ায় রাস্তার পাশের ঘরগুলো ভেঙ্গে না দিলে কাজটি করা যাচ্ছে না। এ বিষয়ে উপজেলা নিবার্হী কর্মকর্তা মাছুম বিল্লাহর সাথে কথা বলেছি।
উপজেলা নিবার্হী কর্মকর্তা মো. মাছুম বিল্লাহ বলেন, ‘অচিরেই দখলকৃত রাস্তার জায়গা মুক্ত করে রাস্তার কাজ সমাপ্ত করা হবে।’ এসময় তিনি কাজের গুণগতমান ভাল রাখার জন্য ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানকে নির্দেশ দেন।