আজ মহাসপ্তমী

স্টাফ রিপোর্টার
দেবী দুর্গার আমন্ত্রণ ও অধিবাসের মধ্য দিয়ে শনিবার শুরু হয়েছে শারদীয় দুর্গাপূজা। ষষ্ঠী তিথিতে শনিবার বাদ্যের সঙ্গে উলুধ্বনি, শঙ্খনাদ আর কাসর ঘণ্টা বাজিয়ে ষষ্ঠীপূজার মধ্য দিয়ে শারদীয় দুর্গাপূজার আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয়। মণ্ডপে মণ্ডপে বন্দনা পূজা বা বোধন শেষে দেবীর আমন্ত্রণ ও অধিবাসের মধ্য দিয়ে শুরু হয় দুর্গোৎসবের মূল আনুষ্ঠানিকতা।
আজ মহাসপ্তমী। দুর্গাপূজা ক্রমশ এগিয়ে চলেছে মধ্যগগণের দিকে। সকালে ত্রিনয়নী দেবী দুর্গার চক্ষুদান করা হবে। এরপর দেবীর নবপত্রিকা প্রবেশ, স্থাপন, সপ্তম্যাদি কল্পারম্ভ ও সপ্তমীবিহিত পূজা অনুষ্ঠিত হবে। নবপত্রিকা স্নান দিয়ে শুরু হবে মা দুর্গার আরাধনা। এরপর দেবী ঘট বসিয়ে সঙ্কল্পের পালা। ফলনের দেবী হিসেবে মহা-সপ্তমীতেৃৃ মা দুর্গার পূজা হয়। অন্যান্য আরও ৮টি গাছের সাথে বেল গাছের শাখা কেটে রাখা হয়। এই নয়টি গাছের শাখাকে স্নান করিয়ে পূজার জায়গায় নিয়ে আসা হয় এবং এর পরেই মাটির প্রতিমায় হয় প্রাণ প্রতিষ্ঠা। বলা হয় দুর্গা পূজার এই ৫ দিনে যত পূজা হয় তার মধ্যে মহাসপ্তমীর পূজাটাই সবচেয়ে বেশি সময়ের। অর্থাৎ সময়সাপেক্ষ পূজা। জানা গেছে, রবিবার (২ অক্টোবর) উৎসবের দ্বিতীয় দিন মহাসপ্তমীর পূজা শুরু হবে সকাল ৬টা ৩০মিনিটে।
এবার দেবী দুর্গা জগতের মঙ্গল কামনায় গজে (হাতি) চড়ে মর্ত্যলোকে (পৃথিবী) এসেছেন। এতে শস্য ও ফসল উৎপাদন বৃদ্ধি পাবে। অন্যদিকে স্বর্গে বিদায় নেবেন নৌকায় চড়ে। যার ফলে জগতের কল্যাণ সাধিত হবে। শনিবার মহাষষ্ঠী দিয়ে শুরু হওয়া দুর্গোৎসব আগামী ৫ অক্টোবর বিজয়া দশমীতে প্রতিমা বিসর্জনের মধ্যদিয়ে শেষ হবে।