আলাউদ্দিন রাজাকারের মুক্তিযোদ্ধা সনদ বাতিলের দাবিতে মানববন্ধন

দোয়ারাবাজার প্রতিনিধি
দোয়ারাবাজার উপজেলার আলাউদ্দিন রাজাকারের নামে সাময়িক মুক্তিযোদ্ধা সনদ ও বিশেষ সেনা গেজেট বাতিলের দাবিতে মানববন্ধন করেছেন মুক্তিযোদ্ধারা।
বুধবার সকালে দোয়ারাবাজার উপজেলা পরিষদের সামনে উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ও সন্তান কমান্ডের আয়োজনে মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন দোয়ারাবাজার উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা ডা. আব্দুর রহিম, অবসরপ্রাপ্ত প্রকৌশলী মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল হালিম বীরপ্রতীক, সাবেক জেলা ইউনিট কমান্ডার মুক্তিযোদ্ধা নুরুল মোমেন, সাবেক অর্থ বিষয়ক কমান্ডার মুক্তিযোদ্ধা ডা. আব্দুর রশিদ, দোয়ারাবাজার উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার সফর আলী, সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক শামসুল হক, সাবেক ডেপুটি কমান্ডার মনফর আলী, সাবেক অর্থ বিষয়ক কমান্ডার আব্দুল খালেক, সাবেক ক্রীড়া সম্পাদক উমর আলী, মুক্তিযোদ্ধা তাজুল ইসলাম মাস্টার, মুক্তিযোদ্ধা জাকির হোসেন মাস্টার, মুক্তিযোদ্ধা হুমায়ুুন কবির, দোহালিয়া ইউনিয়ন মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কমান্ডার মুক্তিযোদ্ধা ওয়ারিস আলী, বাংলাবাজার ইউনিয়ন কমান্ডার মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল বারিক, লক্ষীপুর ইউনিয়ন কমান্ডার মুক্তিযোদ্ধা মকবুল আহমদ, নরসিংপুর ইউনিয়ন কমান্ডার মুক্তিযোদ্ধা চাঁন মিয়া, মান্নারগাঁও ইউনিয়ন কমান্ডার মুক্তিযোদ্ধা প্রীতিশ চক্রবর্তী, সদর ইউনিয়ন কমান্ডার মুক্তিযোদ্ধা প্রবীর মিত্র, মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ড নেতা সোহেল আহমেদ মিন্টু, জসীম উদ্দীন, হোসাইন আহমদ, সিরাজুল ইসলাম, ওমর ফারুক, নুরুল হক, মাসুক প্রমুখ।
মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, দোয়ারাবাজার সদর ইউনিয়নের বীরসিং গ্রামের মৃত গোলাম ফকিরের সন্তান আলা উদ্দিন একজন মানবতাবিরোধী যুদ্ধাপরাধী ও কুখ্যাত রাজাকার। তার নামে মুক্তিযোদ্ধা সাময়িক সনদ প্রাপ্তির প্রতিবাদে এর আগে মুক্তিযোদ্ধা মন্ত্রণালয়ে লিখিত অভিযোগসহ, মানববন্ধন ও সভা সমাবেশ করা হলে তার মুক্তিযোদ্ধা সম্মানী ভাতা বন্ধ হয়ে যায়। পরবর্তীতে সে আদালতের দারস্থ হলে সুনামগঞ্জের মাননীয় আদালত তাকে মুক্তিযোদ্ধা সম্মানী ভাতা প্রদান করার নির্দেশ প্রদান করে। আমরা এই রায়ের বিরুদ্ধে উচ্চ আদালতে আপিল করব। একটি স্বাধীন দেশে মুক্তিযুদ্ধের সরকার ক্ষমতায় থাকাবস্থায় এবং মুক্তিযোদ্ধারা জীবিত থাকতে চিহ্নিত রাজাকার যখন মুক্তিযোদ্ধা হয়ে যায়, তার নামে সরকারি সুযোগ-সুবিধা আসে তখন আমাদের হৃদয়ে রক্ত ক্ষরণ হয়। অবিলম্বে রাজাকার আলা উদ্দিনের মুক্তিযোদ্ধার সাময়িক সনদ ও বিশেষ সেনা গেজেট বাতিল না করা হলে উপজেলার সকল মুক্তিযোদ্ধারা আমরণ অনশনে নামতে বাধ্য হবে।