ইউপি সদস্যের পায়ের রগ কাটার ঘটনায় গ্রেফতার ১

স্টাফ রিপোর্টার, তাহিরপুর
তাহিরপুরে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে সন্ত্রাসী হামলায় বালিজুড়ি ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য ও প্যানেল চেয়ারম্যান বাবুল মিয়ার পায়ের রগ কেটেছে সন্ত্রসীরা। গত সোমবার বিকেল সাড়ে ৫টায় উপজেলার বালিজুড়ি ইউনিয়নের আনোয়ারপুর বাজারে একদল দুর্বৃত্ত এ ঘটনা ঘটিয়েছে। এ ঘটনায় জড়িত আনোয়ারপুর গ্রামের আল আমিন মুরাদকে সোমবার রাতেই আটক করেছে তাহিরপুর থানা পুলিশ।
ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী বালিজুড়ি ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ সাধারণ সম্পাদক তুষা মিয়া ও একই ইউনিয়ন যুবলীগ সভাপতি জিয়া উদ্দিন জানান, ফাজিলপুর গ্রামের কাশেম, রহমগীর, সেলিমগীর, হোসেনগীর ও আনোয়ারপুর গ্রামের বুলবুল, সুমন বিকেল বেলা অতর্কিতভাবে ধারালো দা ও ছুড়ি দিয়ে বাবুল মিয়াকে এলোপাতারীভাবে শরীরের বিভিন্ন স্থানে কুপিয়ে জখম করে ও তার ডান পায়ের রগ কেটে ফেলে। পরে তার স্বজনরা তাকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করে প্রথমে পাশর্^বর্তী বিশ^ম্ভরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এবং পরবর্তিতে সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালে নিয়ে যান। সদর হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসকরা অবস্থা আশঙ্কাজনক দেখে এস্বুলেন্সযোগে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করেছেন।
বাবুল মিয়ার ছোট ভাই জাকারীন আলম জানান,তাহার ভাই বাবুল মিয়ার শরীর থেকে অনবরত রক্ত ঝরছে। বর্তমানে তিনি মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছেন।
এ ঘটনায় বাবুল মিয়ার আপন ভাগ্নে মানিক মিয়া বাদী হয়ে ফাজিলপুর গ্রামের মর্তূজ আলী ওরফে রাজহাঁসের ছেলে আবুল কাশেমকে প্রধান আসামী করে তাহিরপুর থানায় মামলা দায়ের করেছেন।
তাহিরপুর থানা অফিসার ইনচার্জমো. আব্দুল লতিফ তরফদার বলেন, এ ঘটনায় তিনি থানার পুলিশ সদস্যদের নিয়ে আনোয়ারপুর গ্রামের বুলবুল মিয়া ও ফাজিলপুর গ্রামের কাশেমদের বাড়িতে রেড করেছেন। আল আমিন মুরাদ নামে এক ব্যক্তিকে গ্রেফতার করা হয়েছে বলে তিনি জানান। ঘটনাস্থলে মঙ্গলবার সকাল থেকেই পুলিশ মোতায়েন রয়েছে বলেও তিনি জানান।
উল্লেখ্য, গত ১৬ মে আনোয়ারপুর বাজারে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে ফাজিলপুর গ্রামের ফয়সল মিয়া পক্ষ আনোয়ারপুর বাজারের মনবুল ও ইছাক মিয়া পক্ষের সাথে মারামারি হয়। এ ঘটনায় উভয় পক্ষের মামলা হয় তাহিরপুর থানায়।