এ সময়ে চোখ উঠা বা কনজাংটিভাইটিস

ডা. সৈকত দাস
সারা দেশে প্রচুর লোকজন কনজাংটিভাইটিসে (চোখ ওঠা) আক্রান্ত হচ্ছে। ছোট বড় সকলেই এতে আক্রান্ত হচ্ছেন। এটি অতিমাত্রায় ছোঁয়াচে। তাই আক্রান্ত ব্যক্তির সংস্পর্শ থেকে দূরে থাকতে হয়।
☞ চোখ ওঠার লক্ষণ ও উপসর্গ-
১. চোখের সাদা অংশ লাল হয়ে যাওয়া;
২. চোখের পাতা ফুলে যাওয়া;
৩. চোখ দিয়ে পানি পড়া;
৪. চোখে জ্বালাপোড়া করা, খচখচ করা;
৫. ঘুম হতে ওঠার পর চোখের দুই পাতা একসঙ্গে লেগে থাকা;
☞ যেভাবে চোখ উঠার জীবাণু ছড়ায়-
১. সাধারণত ভাইরাস, ব্যাকটেরিয়ার সংক্রমণে এটি হয়। অপরিষ্কার হাত, আক্রান্ত ব্যক্তির স্পর্শে, আক্রান্ত ব্যক্তির তোয়ালে, গামছা ব্যবহারে চোখ উঠতে পারে।
২. অ্যালার্জি ধুলাবালির মাধ্যমে;
☞ চিকিৎসা-
১. হালকা কুসুম গরম পানি দিয়ে চোখ পরিষ্কার রাখতে হবে এবং চোখের পাতাগুলো খোলা রাখতে হবে।
২. চোখে কালো চশমা পড়তে পারেন।
৩. পর্যাপ্ত বিশ্রাম ও ভিটামিনযুক্ত খাবার খান।
☞ কখন চিকিৎসকের কাছে যাবেন-
১. যখন আপনার চোখ থেকে ঘন হলুদ কিংবা সবুজাভ হলুদ রঙের ময়লা পদার্থ বের হয়;
২. চোখ ব্যথা থাকলে;
৩. চোখে ঝাপসা দেখতে পেলে অথবা দেখতে সমস্যা হলে;
৪. চোখের সাদা অংশ ফুলে উঠলে কিংবা লাল হয়ে গেলে।
☞ যা করবেন না-
১. চিকিৎসকের অনুমতি ছাড়া চোখের ড্রপ ও ওষুধ ব্যবহার করা যাবে না।
২.কালারিং চশমা ছাড়া বাইরে বের হবেন না।
☞ প্রতিকার-
১. চোখ ওঠা খুবই ছোঁয়াচে রোগ। পরিবারের একজনের থেকে অন্যজনের হতে পারে। সুতরাং এসব ক্ষেত্রে রোগ প্রতিরোধের জন্য পরিবারের সবাই কাপড়, তোয়ালে ও অন্যান্য জিনিস আলাদা ব্যবহার করুন;
২. চোখে হাত দিবেন না;
৩. ঘন ঘন সাবান দিয়ে হাত ভালোমত পরিষ্কার করুন;
৪. যেসব জিনিসে অ্যালার্জিক তা থেকে দূরে থাকুন;
৫. সাথে জ্বর সর্দি কাশি থাকলে তার চিকিৎসা নিন।
৬. আক্রান্ত হলে ঘরে বিশ্রাম নিন।
☞ কনজাংটিভাইটিস কিন্তু অতিমাত্রায় ছোঁয়াছে।
রোগাক্রান্ত অবস্থায় বাইরে বের হলে সানগ্লাস ব্যবহার করুন। হাত সবসময় পরিষ্কার রাখুন। আপনার ব্যবহৃত রুমাল/ টিস্যু যেখানে সেখানে ফেলা থেকে বিরত রাখুন।
লেখক : এমবিবিএস, বিসিএস (স্বাস্থ্য), ডিসিএইচ (শিশুরোগ -কোর্স), মেডিকেল অফিসার, ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেলা সদর হাসপাতাল, সুনামগঞ্জ।