কি দোষ বোবা গরুর

জামালগঞ্জ প্রতিনিধি
জামালগঞ্জে নিরীহ গরুর মলদ্বারের অংশ কুপিয়ে মারাত্মক জখম করেছে এক দুর্বৃত্ত। গত ১৬ নভেম্বর সোমবার প্রতিপক্ষ ভীমখালী ইউনিয়নের আব্দুল গনীর ছেলে আব্দুল মতিনের সাথে জিদ মিটাতে গিয়ে প্রতিবেশী জয়নুল হকের ছেলে গোলাম হোসেন টিটু এ অপকর্ম করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। প্রতিপক্ষ আব্দুল মতিনের সাথে জায়গা সংক্রান্ত ব্যাপারে গোলাম হোসেন টিটুর দীর্ঘদিনের বিরোধিতা চলে আসছিল। এরই জের ধরে অভিযুক্ত টিটু গরুটিকে কুপিয়েছে বলে অভিযোগ রয়েছে।
জানা যায়, অভিযুক্ত গোলাম হোসেন টিটু ও গরুর মালিক আব্দুল মতিন দু’জনই প্রতিবেশী। তাদের দুই পরিবারের মধ্যে প্রায় বিশ বছর যাবৎ জায়গা নিয়ে বিরোধ চলছে। এ নিয়ে মামলা-মোকদ্দমাও হয়েছে। এরই ধারাবাহিকতায় অভিযুক্ত ব্যক্তি ঘটনার দিন বাড়ির পার্শ্ববর্তী মাঠে বেড়া দিচ্ছিল। পাশেই বাধা ছিল আব্দুল মতিনের গরু। একপর্যায়ে গরু তার জায়গায় চলে আসলে গালিগালাজ শুরু করে টিটু। তার গলা শোনে আব্দুল মতিনের ছোট ভাইয়ের স্ত্রী গরুটিকে কোপ দিতে দেখে বাড়ির মানুষকে ডাক দেন। তখন আব্দুল মতিনের স্ত্রী গিয়ে দেখতে পান বাছুরটির মলদ্বারের অংশ থেকে রক্ত ঝরছে। পরে তারা জখমকৃত গরুটিকে পশু হাসপাতালে নিয়ে আসেন। এ ব্যাপারে জামালগঞ্জ থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।
এ ব্যাপারে ভীমখালী ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য ও একই গ্রামের বাসিন্দা মো. তহুর মিয়া বলেন, ‘এ সংক্রান্ত বিষয়ে আমি কিছু জানি না। তবে দু’পক্ষের মধ্যে বিরোধ আছে।’
গরুর মালিক আব্দুল মতিন বলেন, ‘আমার বাছুরটা মার দুধ খাইয়া তার জাগাত আইছিল। এরপরে হে গালাগালি কইরা ছেদ দিয়া কাইটালাইছে। এই গরুটা বাগি আনছি। আমি পরের বাড়িত কামকাজ কইরা খাই। পরের গরু বাগি পাইল্যা যদি একটু গরু পাই তাহইলে এইডাই আমার আয়। এখন গরুডারে হে জখম করছে। আমি এর বিচার চাই।’
গরু কোপানোর কথা অস্বীকার করে গোলাম হোসেন টিটু বলেন, ‘আমি এই সময় এইখান আছলাম না। আমি কোপাইছি না। গরু এখন লাডুরি চলে। কোয়াই থেইকা কোপ খাইয়া কোয়াই আইয়া উবাইছে কিতা কইতাম।’
জামালগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ সাইফুল আলম জানিয়েছেন, এ ব্যাপারে একটি অভিযোগ পেয়েছি। বর্তমানে সেটি তদন্তাধীন আছে।