গ্যাসের মূল্য বৃদ্ধির প্রতিবাদ

১২ লিটার সিলিন্ডারের দাম প্রায় ২৫০ টাকা বৃদ্ধি ও দফায় দফায় চাল, ডাল, তেলসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্য সামগ্রীর মূল্য বৃদ্ধির প্রতিবাদ জানিয়ে বিবৃতি দিয়েছে জাতীয় গণতান্ত্রিক ফ্রন্ট।
বুধবার সুনামগঞ্জ জেলা শাখার আহ্বায়ক রত্নাংকুর দাস জহর ও যুগ্ম আহ্বায়ক সাইফুল আলম (ছদরুল) এই বিবৃতি প্রদান করেন।
বিবৃতিতে উল্লেখ করা হয়, নিত্যপণ্যের বর্তমান উর্ধগতির এই বাজারে নিম্নবিত্তের মানুষ থেকে মধ্যম আয়ের পরিবার সবার যেন হাত পুড়ছে বাজারে গিয়ে। চাল, ডাল ও তেলের দামে অস্বস্তি আগে থেকেই ছিল। এ তালিকায় নতুন করে যুক্ত হয়েছে পেঁয়াজ, আটা, ময়দা, মুরগি, ডিমসহ আরও কিছু নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য। বেড়েছে রান্নার গ্যাস, সাবান ও টুথপেস্টের মতো নিত্যব্যবহার্য সামগ্রীর দামও। করোনা মহামারীর মধ্যে সরকারের দায়িত্ব হলো দ্রব্য মূল্যের ভর্তুকি প্রদান করা, কিন্তু তা না করে দফায় দফায় লাগামহীন ভাবে চাল, ডাল, তেল, পেঁয়াজ চিনিসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসের দাম লাগামহীনভাবে বাড়িয়ে যাচ্ছে। তার সাথে পাল্লা দিয়ে গ্যাসের দাম বৃদ্ধি করেছে কয়েক দফা।
বিবৃতিতে আরো উল্লেখ করা হয়, কৃষি মৌসুম শুরু হওয়ার পূর্বেই সার, ডিজেলের দামও অনিশ্চয়তার দিকে নিয়ে যাচ্ছে। ক্ষমতাসীন ও তাদের আর্শীরবাদপুষ্টদের ব্যাপক দুর্নীতি ও লুটপাটের কারণে জনগণের পকেট কেটে টাকার পাহাড় তৈরি করার মধ্যে বৈষম্য আরো বাড়িয়ে দিচ্ছে। এক দিকে দরিদ্রদের সংখ্যা বাড়ছে অপর দিকে কোটিপতির সংখ্যা বাড়াতে। জনগণের মধ্যে ক্ষোভ ও বাড়ছে। ই-ভ্যালি, ই-কমার্স, ই-রিং বিভিন্ন নামে হাজার হাজার কোটি টাকা লুটপাট করে নিচ্ছে আর সরকার নিরব দর্শকের ভূমিকা পালন করছে। সরকার কৃষক, শ্রমিক, জনবান্ধব মুখে বুলি বুললেও কৃষক, শ্রমিক, ছাত্র- জনগণের পক্ষে কোন ভূমিকা গ্রহণ করছে না।
বিবৃতিতে অনতিবিলম্বে গ্যাসের দাম কমানো, নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসের দাম কমিয়ে প্রয়োজনবোধে ভর্তুকি প্রদান করে জনগণের ক্রয়ক্ষমতার মধ্যে আনার দাবি জানানো হয়।
প্রেসবিজ্ঞপ্তি