ঘন কুয়াশায় সবজি চাষীদের মাথায় হাত

জামালগঞ্জ প্রতিনিধি
সুনামগঞ্জের জামালগঞ্জ উপজেলায় ঘনকুয়াশায় নষ্ট হচ্ছে শিম, লাউ, আলু, মরিচ, টমেটো সহ বিভিন্ন ধরনের শীতকালীন সবজি। দুশ্চিন্তায় আর হতাশায় দিন কাটছে সবজি চাষীদের। তবে কৃষি বিভাগ বলছে বৈরী আবহাওয়ায় রবি ফসল রক্ষায় কৃষকদের প্রয়োজনীয় পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে।
জানা যায়, গত বন্যার ক্ষতি পোষাতে জামালগঞ্জ উপজেলায় চাহিদা তুলনায় এবার অধিক পরিমান জমিতে শীতকালীন সবজির চাষ করেছেন কৃষকরা। কিন্তু তীব্র শীত ও ঘন কুয়াশায় কৃষকদের স্বপ্নের ফসল নষ্ট হতে শুরু করেছে। গাছের পাতা ও গোড়া পচে যাচ্ছে।
উপজেলার সদর ইউনিয়নের কাশিপুর গ্রামের আলু ও টমেটু চাষী ইয়ার আলী বলেন, আমি তিন বিঘা জমিতে আলু ও দুই বিঘা জমিতে টমেটো চাষ করেছি। ঘন কুয়াশা ও রোদ না থাকায় পাতা লাল হয়ে পচে যাচ্ছে। কীটনাশক দিয়েও কোন কাজ হচ্ছে না। গাছ বাঁছানো না গেলে আমার বিশাল ক্ষতি হবে।
একই কথা বলেছেন গ্রামের মরিচ চাষী শামছু মিয়া, শিম চাষী শুক্কুর আলী, বেগুন ও করলা চাষী আব্দুল কাদির। সকলের জমির ফসলের একই অবস্থা।


উপজেলা কৃষি বিভাগের সূত্রে জানা যায়, উপজেলায় চলতি রবি মৌসুমে ১ হাজার ৪২২ হেক্টর জমিতে শীতকালীন সবজির চাষ হয়েছে। গত মৌসুমে বন্যায় ক্ষতি হওয়ায় এবার কৃষকরা বেশী জমিতে সবজি চাষ করেছিলেন। কিন্তু বৈরী আবহাওয়ায় ও টানা শৈত প্রবাহে আলু ও টমেটোর পাতা লাল হয়ে কুচকে যাচ্ছে।
জামালগঞ্জ উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. আলা উদ্দিন জানান, আমরা কৃষকদের রোগ প্রতিরোধে বিভিন্ন পরামর্শ দিয়ে যাচ্ছি। প্রতিটি কৃষকদের নিকট কৃষি অধিদপ্তরের কর্মকর্তাদের মোবাইল নম্বর দেওয়া আছে। তাদের যে কোন সমস্যায় মাঠে গিয়ে পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে।