- সুনামগঞ্জের খবর » আঁধারচেরা আলোর ঝলক - https://sunamganjerkhobor.com -

ঘুরে আসুন শহীদ সিরাজ লেক

আসাদ মনি
মেঘালয় পাহাড়ের পাদদেশে নয়নাভিরাম পর্যটন স্পট শহীদ সিরাজ লেক। লেকের চারপাশে পাহাড় ও টিলার সবুজের সমারোহ। স্বচ্ছ পরিষ্কার নীল জল। তাহিরপুর উপজেলার ট্যাকেরঘাটের এই লেকের সৌন্দর্য উপভোগ করার জন্য প্রতিদিন অনেক পর্যটক আসেন।
২০১৭ সালে বাংলাদেশ ট্যুরিজম বোর্ড এর অর্থায়নে শহীদ সিরাজ লেক’র উন্নয়ন কাজের ভিত্তিপ্রস্তর আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন তৎকালীন জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ সাবিরুল ইসলাম। লেকসহ পুরো এলাকায় পর্যটকদের বসায় চেয়ার, বাচ্চাদের দোলনা স্থাপন করা হয়েছে।
এলাকাবাসি বলেছেন, পর্যটনকে কেন্দ্র করে গড়ে উঠেছে নতুন নতুন রেস্টুরেন্ট। এতে অনেকে স্বাবলম্বি হচ্ছেন। তবে এবার করোনা ভাইরাসের কারণে পর্যটকের সংখ্যা কমে গেছে। প্রশাসনিকভাবেও নিষেধাজ্ঞা ছিলো কিছুদিন।
প্রসঙ্গত ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধে ৫ নং সেক্টরের টেকেরঘাট সাব-সেক্টরের হেডকোয়ার্টার ছিলো তাহিপুরের টেকেরঘাট। এখান থেকেই ভাটি অঞ্চলের অধিকাংশ অপারেশন পরিচালনা করতেন মুক্তিবাহিনীর যোদ্ধারা। টেকেরঘাট থেকে যুদ্ধে গিয়ে বহু মুক্তিযোদ্ধা শহীদ হয়েছেন, তাঁদের অনেকের লাশ টেকেরঘাটেই সমাহিত করা হয়েছে। এদের মধ্যে অন্যতম ছিলেন শহীদ সিরাজ বীরবিক্রম। যিনি পার্শ্ববর্তী জামালগঞ্জ থানা মুক্ত করতে গিয়ে প্রাণ বিসর্জন দিয়েছেন। তাঁর প্রতি সম্মান জানিয়ে পরিত্যক্ত লাইম স্টোন কোয়ারির লেকের নামকরণ করা হয়েছে ‘শহীদ সিরাজ লেক’।
জানা যায়, সীমান্তবর্তী ট্যাকেরঘাট চুনাপাথর খনিজ প্রকল্পের পরিত্যক্ত এই কোয়ারী থেকে ১৯৪০ সালে চুনাপাথর সংগ্রহ শুরু হয়। ১৯৪৭ সালে দেশভাগের পর কোয়ারী থেকে চুনাপাথর উত্তোলন বন্ধ হয়ে যায়।
পরে ১৯৬০ সাল থেকে আবারও পাথর উত্তোলনের কাজ শুরু হয়। ৬ বছর মাইনিংয়ের মাধ্যমে খনিজ পাথর উত্তোলন হয়ে ১৯৯৬ সালে আবারো বন্ধ হয়ে যায়। চুনাপাথর সংগ্রহ করতে গিয়ে খুড়াখুড়ির ফলে ৩ দিকে টিলা ও এই লেকের সৃষ্টি হয়েছে।
স্থানীয় বাসিন্দা মো. বাবর আলী বলেন, ২০১৭ সালে ট্যাকেরঘাটের লেকটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হওয়ার পর পর্যটকদের আনাগোনা বৃদ্ধি পায়। এরপর ২০১৮ সনে জনপ্রিয় হানিফ সংকেত’র জনপ্রিয় অনুষ্ঠান ইত্যাদি এই শহীদ সিরাজ লেকের পাড়েই হয়েছে। করোনা যেনো সবকিছু থমকে দিয়েছে। তবে প্রশাসনিকভাবে এই এলাকায় নিষেধাজ্ঞা উঠিয়ে দেওয়ায় আবারো পর্যটকদের উপস্থিতি বৃদ্ধি পাচ্ছে।
ঢাকার নরসিংদী থেকে সিরাজ লেক দেখতে এসেছেন মো. রিপন মাহমুদ নামে এক পর্যটক। শহীদ সিরাজ লেকের সৌন্দর্যে মুগ্ধ হয়ে তিনি বলেন, লেকের উত্তরে নীল পাহাড়ে ঘেরা। তিন দিকে সবুজ মখমলে মাঠে ছোট ছোট টিলা। তার উপরে আকাশে ভেসে বেড়ানো সাদা মেঘের বেলা। পারস্য কবি আমির খসরুর কবিতার একটি লাইন মনে পড়ছে, যদি স্বর্গ কোথাও থাকে, তা এখানেই, তা এখানেই, তা এখানেই।
তাহিরপুর উপজেলার নির্বাহী অফিসার পদ্মসন সিংহ বলেন, পর্যটকদের সুবিধার জন্য আমরা ট্যাকেরঘাটে রেস্ট হাউজের ব্যবস্থা করেছি। দূরের পর্যটকরা সেখানে ফ্রেশ হতে পারবে। লেকের পাড়ে কংক্রিটের চেয়ার বানানো হয়েছে। এছাড়াও যে কোনো প্রয়োজনে আমাদের সঙ্গে যোগাযোগ করলে আমরা সহযোগিতা করবো।

  • [১]