- সুনামগঞ্জের খবর » আঁধারচেরা আলোর ঝলক - https://sunamganjerkhobor.com -

চালবন্দ সড়কের দুই স্থান ভেঙে গেছে

স্টাফ রিপোর্টার
বিশ্বম্ভরপুর উপজেলার সলুকাবাদ ইউনিয়নে চার দফা বন্যায় ভেঙেছে চালবন্দ এলাকায় যাতায়াত সড়ক। এই সড়কের পাশাপাশি দুই স্থান ভাঙনের ফলে সলুকাবাদ ইউনিয়নের মানুষ ও যানবাহন চলাচলে মারাত্মক ঝুঁকি বেড়েছে। প্রতিদিন বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষ এই সড়ক দিয়ে শহরে আসা-যাওয়া করেন। সড়ক দ্রুত মেরামতের দাবি স্থানীয় বাসিন্দাদের।
স্থানীয় বাসিন্দা নোয়াব মিয়া, জুয়েল আহমদ ও বশির মিয়া জানান, এবারের প্রথম দফা বন্যায় চালবন্দ গ্রামের এই গুরুত্বপূর্ণ সড়কের দুই স্থান ভেঙে যায়। মানুষ ও যানবাহন চলাচলের সুবিধার্থে এক স্থানে বাঁশের সাঁকো তৈরি করে দেন স্থানীয় বাসিন্দারা। এই বাঁশের সাঁকোর পাশে কালভার্ট সেতুর দুই পাশের পাকা সড়ক ভেঙে ধ্বসে গেছে। চালবন্দ গ্রামের ত্রিমুখি সড়ক থেকে শুরু করে গ্রামের শেষ অংশ পর্যন্ত পুরো সড়কটির পাকা ঢালাই ভেঙে গেছে। সড়কের বিভিন্ন স্থানে ছোট ও বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। এতে মানুষ চলাচলে ভোগান্তি বেড়েছে এবং যানবাহন চলাচলে ঝুঁকি বেড়েছে।
চালবন্দ গ্রামের বাসিন্দা হাসান আলী জানান, প্রথম বন্যায় ভেঙেছে কালভার্ট সেতু ও পাকা সড়কের এক স্থান। পরবর্তী তিন দফা বন্যায় ভেঙেছে পাকা সড়কের সাইটে বিভিন্ন অংশ। এবারের বন্যায় চালবন্দ গ্রামের নির্মিত পুরাতন পাকা সড়ক পুরোটি বিন্যাস হয়েছে। এই গুরুত্বপূর্ণ সড়ক দ্রুত সংস্কার জরুরি প্রয়োজন।
স্থানীয় বাসিন্দা ও ওয়ার্ড আ.লীগ নেতা আব্দুল হান্নান জানান, চালবন্দ গ্রামের মানুষ এই ভাঙাচোড়া সড়কে পায়ে চলাচলেও ঝুঁকি বেড়েছে। এই সড়ক দিয়ে ইউনিয়নের হাজারো মানুষ শহরে আসা-যাওয়া করেন। সড়কটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। তাই জরুরিভিত্তিতে সড়কের মেরামত দরকার।
স্থানীয় ইউপি সদস্য মোহাম্মদ শাহপরান বলেন, এবারের বন্যায় চালবন্দ সড়কের বিভিন্ন স্থান ভাঙনের ফলে যানবাহন ও মানুষ চলাচলে ঝুঁকি বেড়েছে। এই সড়কের মেরামত জরুরি প্রয়োজন।

  • [১]