ছাতকে কোরাম সংকটে হয়নি মাসিক সমন্বয় সভা

ছাতক প্রতিনিধি
ছাতকে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার সাথে ইউপি চেয়ারম্যানদের মতবিরোধ ক্রমেই চরম আকার ধারন করছে। ফলে তৃণমূল পর্যায়ে স্বাভাবিক উন্নয়ন কার্যক্রম ব্যাহত হওয়ার আশংকা করছেন সাধারন মানুষ।
বৃহস্পতিবার ইউপি চেয়ারম্যানদের অনুপস্থিতির কারণে কোরাম সংকটে উপজেলা পরিষদের মাসিক সমন্বয় কমিটির সভা অনুষ্ঠিত হয়নি। উপজেলা পরিষদ সম্মেলন কক্ষে এ সভা অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা থাকলেও ইউপি চেয়ারম্যানদের অনুপস্থিতে সৃষ্টি হয় কোরাম সংকট। সময়মত যথারীতি সংসদ সদস্য মুহিবুর রহমান মানিক ও উপজেলা চেয়ারম্যানসহ কমিটির অন্যারা উপস্থিত থাকলেও কোরাম সংকটের কারনে মাসিক সমন্বয় কমিটির সভা করা সম্ভব হয়নি।
জানা গেছে, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ গোলাম কবিরের সাথে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যানসহ ইউপি চেয়ারম্যানদের বিরোধ চলে আসছিল গত কয়েক মাস ধরে। ৫ নভেম্বর উপজেলা পরিষদের এক সরকারি অনুষ্ঠান জনপ্রতিনিধিরা বয়কট করলে বিরোধের বিষয়টি স্পষ্ট হয়ে উঠে। ওইদিন উপজেলার সম্প্রসারিত প্রশাসনিক ভবন ও হলরুম নির্মাণ কাজের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন অনুষ্ঠনে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মুহিবুর রহমান মানিক এমপি। ভিত্তি প্রস্তর স্থাপনকালে ইউএন’র সাথে এক মঞ্চে অবস্থান করতে জনপ্রতিধিরা ওই দিন অসম্মতি জানান।
এ সময় তারা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার সাথে সব ধরনের সভা-অনুষ্ঠানসহ উন্নয়ন কর্মকান্ডে সহযোগিতা করবেন না বলে ঘোষণা দেন। বিষয়টি নিরসনের লক্ষ্যে তাৎক্ষণিক মুহিবুর রহমান মানিক এমপি জনপ্রতিনিধিদের সাথে এক বৈঠকে মিলিত হন। কিন্তু জনপ্রতিনিধিরা তাদের সিদ্ধান্তে অটল থাকেন। এ বিরোধ চলতে থাকলে উপজেলা পর্যায়ে সকল উন্নয়নমুলক কর্মকান্ডে সৃষ্টি হতে পারে অচলাবস্থা-এমন আশংকাই করছেন সাধারন মানুষ।
২৬ নভেম্বরের উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার উপস্থিতিতে সমন্বয় সভা জনপ্রতিনিধিদের বয়কট করার বিষয়টি গত কদিন ধরেই অফিস পাড়ায় গুঞ্জন চলছিল। কিন্তু বিষয়টি নিরসনের লক্ষ্যে কোন ধরনের উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়নি।
একটি দয়িত্বশীল সূত্র জানায়, সমন্বয় সভায় জনপ্রতিনিধিদের অনুপস্থিতির বিষয়টি আঁচ করতে পেরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ গোলাম কবিরও মাসিক সমন্বয় সভায় উপস্থিত হয়নি। তিনি জরুরী কাজে ঢাকা চলে গেছেন বলে জানা গেছে।
সমন্বয় সভায় যোগদিতে বৃহস্পতিবার নির্ধারিত সময়ের আগেই সংসদ সদস্য মুহিবুর রহমান মানিক, উপজেলা চেয়ারম্যান ফজলুর রহমান, সহকারী কমিশনার (ভূমি) তাপস শীলসহ কমিটির অন্যান্য সদস্যবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
এ ব্যাপারে উপজেলা চেয়ারম্যান ফজলুর রহমান জনপ্রতিনিধিদের বিভিন্ন কারণে নির্বাহী কর্মকর্তার মতবিরোধের বিষয়টি স্বীকার করে জানান, সৃষ্টকোরাম সংকটের কারণে মাসিক সমন্বয় সভাটি অনুষ্ঠিত হয়নি। সৃষ্ট এ সমস্যার দ্রুত অবসান না ঘটলে সংকট আরো বাড়তে পারে বলে তিনি আশংকা প্রকাশ করেছেন।