ছেলের হাতে পিতা খুন, ঘাতক ছেলে আটক

তাহিরপুর প্রতিনিধি
তাহিরপুরে পারিবারিক কলহের জের ধরে ছেলের হাতে খুন হয়েছেন পিতা। খুন হওয়া ব্যক্তি উপজেলার বাদাঘাট ইউনিয়নের কামড়াবন্ধ গ্রামের মৃত. ফালু মিয়ার ছেলে। শনিবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে বাদাঘাট বাজারের বাদাপট্টি রোডে ছেলের দোকানের সামনে এ নির্মম হত্যাকা-ের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনার পর অভিযান চালিয়ে ঘাতক নাজমুল ইসলাম (২৫) কে আটক করেছে পুলিশ। আটককৃত ঘাতক নাজমুল ইসলাম নিহত ইসলাম উদ্দিনের বড় ছেলে।
জানা যায়, শনিবার রাতে বাদাঘাট বাজারে ছেলের দোকানের সামনে ছেলে নাজমুলের সঙ্গে পিতা ইসলাম উদ্দিনের তর্কবিতর্ক হয়। একপর্যায়ে ছেলে উত্তেজিত হয়ে হাতে থাকা ছরতা (সুপারি কাটার যন্ত্র) দিয়ে পিতার মাথায় আগাত করে। এতে রক্তাক্ত অবস্থায় মাটিতে লুটিয়ে পড়েন ইসলাম উদ্দিন। পরে আশপাশে থাকা লোকজন স্থানীয় চিকিৎসকের কাছে তাকে নিয়ে গেলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। সংবাদ পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে লাশ উদ্ধার করে এবং রবিবার সকালে ময়নাতদন্তের জন্য সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালে প্রেরণ করে। ঘটনার পর পরই ঘাতক ছেলে পালিয়ে যায়। রাত তিনটার দিকে ঘাগটিয়া গ্রাম থেকে পুলিশ অভিযান চালিয়ে তাকে আটক করে।
নিহতর ছোট ভাই রইছ মিয়া জানান, তার বড় ভাই বিগত কয়েক বছর ধরে মানসিক রোগে ভুগছিল। বাড়িতে অকারণে ঝগড়া আর ভাংচুর করতো। সামনে যাকে পেতো তাকেই মারপিট করতো।
তাহিরপুর থানার ওসি মো. আব্দুল লতিফ তরফদার বলেন, বাদাঘাট বাজারে পারিবারিক কলহের জের ধরে ছেলের হাতে পিতা খুন হয়েছেন। পুলিশ লাশ উদ্ধার ময়নাতদন্তের জন্য সুনামগঞ্জ মর্গে প্রেরণ করেছে। ঘাতক ছেলেকে পুলিশ অভিযান চালিয়ে ঘাগটিয়া গ্রাম থেকে আটক করেছে। এ বিষয়ে থানায় একটি হত্যা মামলার প্রস্তুতি চলছে।