জগন্নাথপুরে বেড়েছ পানি, দিশেহারা পানিবন্দি মানুষ

আলী আহমদ, জগন্নাথপুর
গত রবিবার মধ্যরাত থেকে সোমবার দুপুর পর্যন্ত টানা বৃষ্টিপাতে ও পাহাড়ি ঢলে জগন্নাথপুরের নদ, নদী এবং হাওরগুলোতে পানি বেড়েছে। ফলে ৩য় দফা বন্যার শঙ্কা দেখা দিয়েছে।
নলুয়া হাওরপাড়ের দাসনাগাঁও গ্রামের ইউপি সদস্য রনধীর কান্ত দাস নান্টু সোমবার দুপুরে জানান, টানা বৃষ্টিপাতে ও উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে ভোররাত থেকে পানি বেড়েছে। এরমধ্যে দুই দফা বন্যায় গৃহহীন হয়ে পড়া লোকজন বসতবাড়িতে ফিরলে ফের বন্যার শঙ্কায় আবার আশ্রয় খোঁজতে ছুটছে মানুষ।
চিলাউড়া হলদিপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আরশ মিয়া বলেন, বন্যা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়ে ওঠার আগেই আবারও বন্যার শঙ্কায় হাওরাঞ্চলের মানুষ। তিনি জানান, এখনও গ্রামীণ রাস্তা-ঘাট, বসতবাড়ি ঘরের চারপাশে পানি রয়েছে। এরমধ্যে নতুন করে পানি বাড়ায় দুশ্চিন্তায় আছেন লোকজন।
কলকলিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল হাসিম জানান, গত তিন-চার দিনে লোকজনের বসতঘর থেকে বন্যার পানি কমলেও আমাদের ইউনিয়নে এখনও ৯০ ভাগ মানুষ পানিবন্দি। এরমধ্যে ভারী বর্ষণ ও ঢলে গতকাল পানি বেড়েছে। ফের বন্যার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে।
জগন্নাথপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (চ.দা.) মো. ইয়াসির আরাফাত বলেন, আমরা সার্বিক পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করছি।
প্রসঙ্গত, গত ২৪ জুন জগন্নাথপুরে প্রথম দফায় বন্যা হয়। গত ১১ জুলাই ফের ২য় দফা বন্যায় জগন্নাথপুর উপজেলার কলকলিয়া, চিলাউড়া- হলদিপুর, রানীগঞ্জ, সৈয়দপুর, আশারকান্দি ও জগন্নাথপুর পৌরসভার একাংশের প্রায় ৬০ গ্রামের মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েন। বন্যায় তলিয়ে যায় অসংখ্য রাস্তাঘাট। ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে অসংখ্যা কাঁচাঘর-বাড়ি। বন্যা ভেঙে গেছে অনেক ফিসারির মাছ।