জগন্নাথপুরে সংঘর্ষে আহত ২৫

জগন্নাথপুর অফিস
জগন্নাথপুর উপজেলার পাটলী ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডে ২৫০০ টাকা মানবিক সহায়তা প্রদানের তালিকায় ধনাঢ্য ব্যক্তিদের অন্তর্ভুক্ত করার অভিযোগে দুই পক্ষের সংঘর্ষে ২৫ জন আহত হয়েছেন। তাদের মধ্যে গুরুতর আহত ৪ জনকে শনিবার সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
জানা যায়, প্রধানমন্ত্রী ঘোষিত ৫০ হাজার পরিবারের মধ্যে ২৫০০ টাকা করে মাসিক মানবিক সহায়তার ওয়ার্ড ভিত্তিক তালিকা সংগ্রহের কাজ সম্প্রতি বাস্তবায়ন করেন সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ডের জনপ্রতিনিধিরা। পাটলী ইউনিয়নের ১ নং ওয়ার্ডের ইউনিয়ন পরিষদ সদস্য সোনা মিয়া ও সংরক্ষিত মহিলা সদস্য ফেরদৌসী তানিয়া তাদের ওয়ার্ডের ১০২ জনের তালিকা করেন। তালিকায় স্বজনপ্রীতি, এলাকার ধনাঢ্য ব্যক্তি ও চাকরিজীবীদের নাম অন্তর্ভুক্ত করায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে দুই জনপ্রতিনিধির বিরুদ্ধে সমালোচনার ঝড় উঠে। এক পর্যায়ে এ নিয়ে উত্তেজনা দেখা দেয়। যার জের ধরে গ্রামের বাসিন্দা সাবেক ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য আশিক মিয়া বাড়িতে শুক্রবার রাতে সালিশ বৈঠক বসে। বৈঠকে জনপ্রতিনিধিদের তালিকা সংশোধন করতে বলা হয়। এর জের ধরে শনিবার ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য সোনা মিয়া পক্ষে দবির মিয়া ও একই গ্রামের মোজাফফর আলীর মধ্যে সকালে মুঠোফোনে কথা কাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে দুই পক্ষের লোকজন সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়লে উভয় পক্ষের ২৫ জন আহত হন। আহতদেরকে জগন্নাথপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।
এরমধ্যে গুরুতর আহত সিরাজুল হক (৬৫), কাওছার আহমেদ (২৬), বাবুল আহমদ (২৮) জাকারিয়া আহমেদ (৩০) কে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। অপর আহতরা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি আছেন।
পাটলী ইউনিয়ন পরিষদের ১ নং ওয়ার্ড সদস্য সোনা মিয়া জানান, আমি ও আমার ওয়ার্ডের সংরক্ষিত মহিলা সদস্য মিলে ১০২ টি নাম তালিকাভূক্ত করেছিলাম। এ নিয়ে আমাদের বিরুদ্ধে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে অশালীন ভাষায় লেখালেখি হয়। শুক্রবার রাতে বিষয়টি নিষ্পত্তি হয়। এরপরও গতকাল মুঠোফোনে আমার পক্ষের লোকজনকে প্রতিপক্ষের লোকজন গালিগালাজ করায় দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ হয়।
জগন্নাথপুর থানার এস.আই আতিকুর রহমান জানান, সংঘর্ষের ঘটনার খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। উভয়পক্ষের আহতরা চিকিৎসাধীন আছেন। বর্তমানে পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে।