জনগণকে সচেতন করতে মাঠে জনপ্রতিনিধি ও প্রশাসন

ইয়াকুব শাহরিয়ার, দ. সুনামগঞ্জ
বিধিনিষেধ উপেক্ষা করে বিনা প্রয়োজনে ঘরের বাইরে বের হচ্ছে দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলার মানুষ। জনগণকে সচেতন করতে মাঠ পর্যায়ে কাজ করছে উপজেলা পরিষদ, উপজেলা প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসন, স্বাস্থ্য বিভাগ ও জনপ্রতিনিধিরা।
জানা যায়, চলতি লকডাউনের শুরুর দিন থেকে সাধারণ মানুষকে সচেতন করতে বিভিন্ন বাজারে, পয়েন্টে এমনকি গ্রামে গ্রামে গিয়েও মানুষকে সচেতন থাকার ও স্বাস্থ্যবিধি মানার পরামর্শ দিচ্ছেন জনপ্রতিনিধিরা। উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ফারুক আহমদ, ভাইস চেয়ারম্যান প্রভাষক নূর হোসেন ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান দোলন রানী তালুকদার মানুষকে সচেতন করতে ঘুরে বেড়াচ্ছেন উপজেলার প্রতিটি ইউনিয়নে ইউনিয়নে। তখন তাদের সাথে সময় দিচ্ছেন সংশ্লিষ্ট ইউনিয়নের জনপ্রতিনিধিরাও।
এদিকে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে জনসচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে দিনরাত কাজ করে যাচ্ছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. আনোয়ার উজ জামান, থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোক্তাদির হোসেন ও উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা (টিএইচও) ডা. জসিম উদ্দিন শরিফী। শারীরিক দূরত্ব মানতে, মাস্ক ব্যবহার করতে ও লকডাউনের অন্যান্য বিধিনিষেধ পালনে পোস্টার বিলি, অভিযান পরিচালনা, দোকান স্থানান্তর, মাইকিংসহ বিভিন্ন কার্যক্রম পরিচালনা করছেন।
পশ্চিম পাগলা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নূরুল হক বলেন, আমার ইউনিয়নের সকল ব্যবসায়ী, সাধারণ মানুষকে সচেতন করার চেষ্টটা করে যাচ্ছি।
উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা (টিএইচও) ডা. জসিম উদ্দিন শরিফী বলেন, উপজেলাবাসীকে স্বাস্থ্য সচেতন করতে লিফলেট বিতরণ, মাইকিং করিয়েছি। নিজেরাও মাঠে প্রথম থেকে কাজ করে যাচ্ছি। প্রতিটি ওয়ার্ডে গঠন করা হচ্ছে কমিটি।
দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আনোয়ার উজ জামান বলেন, আমরা প্রথম থেকেই মাঠে কাজ করছি। দিন রাত পরিশ্রম করে যাচ্ছি। উপজেলার এমন কোন জায়গা নেই যেখানে আমরা স্বাস্থ্য সচেতন করার জন্য যাইনি। পুলিশ প্রশাসনের সহযোগিতা নিয়ে বাজার স্থানান্তর করেছি। মানুষকে সুস্থ রাখতে, ঘরে রাখতে আমরা সব ধরনের কার্যক্রম পরিচালনা করে যাব।
দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ফারুক আহমদ বলেন, পরিষদের তরফ থেকে আমি, ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যানসহ আমরা সকলেই মাঠ পর্যায়ে কাজ করছি। মানুষকে সচেতন করছি। গ্রামে গ্রামে ঘুরে বেড়াচ্ছি মানুষকে সচেতন করার জন্য।