জব্দকরা পাথর নিলামে বিক্রি

বিশ্বম্ভরপুর প্রতিনিধি
ধোপাজান নদীর জব্দ করা ১ লক্ষ ৫৬ হাজার ৬৯৭ ঘনফুট পাথর প্রকাশ্যে নিলামে ৮৩ লক্ষ ৮৪ হাজার ৯৮৪ টাকায় বিক্রি করা হয়েছে।
বুধবার দুপুরে উপজেলার সলুকাবাদ ইউনিয়নের কাঠাল বাগানে জব্দ করা পাথর নিলামে বিক্রি করা হয়।
বিশ্বম্ভরপুর উপজেলা নিবার্হী অফিসার মো. সাদি উর রহিম জাদিদ’র নেতৃতে ধোপাজান নদীর পার্শ্ববতীর্ ৯টি স্পটের পাথরের নিলাম কার্যক্রম পরিচলান হয়। ডলুরা কাঠ বাগান স্পটের ৮ লক্ষ ১০ হাজার টাকা, বীর মুক্তিযোদ্ধা ছিনু মিয়ার বাড়ির সামনের তোপ ৯ লক্ষ ৮হাজার ৭৭০ টাকা, বীর মুক্তিযোদ্ধা সোনার মিয়ার বাড়ির সামনে ২ লক্ষ ৭৭ হাজার টাকা, হানিফ মিয়া বাঁশ বাগান তোপ ২৩ লক্ষ ৭৯ হাজার ৫৫৪টাকা, অদুদ মিয়ার বাগানের তোপ ১১ লক্ষ ১১হাজার ৯শত টাকা, জয়নাল আবেদীনের বাড়ীর সামনের তোপ ১০লক্ষ ৫হাজার ৩৪০ টাকা, সমিতি ঘরের সামনের তোপ ৩ লক্ষ ৮২হাজার টাকা, ডলুরা আস্তানার সামনের তোপ ৬ লক্ষ ৮৪ হাজার ২২০টাকা ও কালীপুর ডলুরা হাজী মড়লের বাড়ীর সামনের তোপ ৮ লক্ষ ২৬ হাজার ২শত টাকায় বিক্রি করা হয়।
নিলামে উপস্থিত ছিলেন বিশ্বম্ভরপুর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মো. সফর উদ্দিন, সুনামগঞ্জ সদর উপজেলা নিবার্হী অফিসার সালমা পারভীন, বিশ্বম্ভরপুর সহকারি কমিশনার (ভূমি) শিল্পী রানী মোদক, খনিজ সম্পদ মন্ত্রনালয়ের প্রতিনিধি মো. আজিজুল হক ও মো. মাহফুজুর রহমান, বিশ্বম্ভরপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মো. ইকবাল হোসেন, সলুকাবাদ ইউপি চেয়ারম্যান নূরে আলম সিদ্দিকী তপন, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নূরুল আলম সিদ্দিকী, উপজেলা জাতীয় পার্টির সাধারণ সম্পাদক আব্দুল কাদির, আওয়ামী লীগ নেতা মো. মহরম আলী, উপজেলা সাবেক ছাত্রলীগ সভাপতি হুমায়ূন কবির পাপন, আ.লীগ নেতা অলিমান তালুকদার, ব্যবসায়ী মো. আবুল মিয়া, ফুলো মিয়া প্রমুখ।