জানালা ভেঙে চোরকে ছিনিয়ে নিলো স্বজনেরা

ধর্মপাশা প্রতিনিধি
মাঝরাতে বিদ্যালয়ের নির্মাণাধীন ভবনের কাজে ব্যবহৃত উপকরণ চুরি করে নিয়ে যাওয়ার সময় হাতেনাতে ধরা হয় এক চোরকে। তারপর আটকে রাখা হয় বিদ্যালয়ের পুরনো ভবনের একটি কক্ষে। ভোররাতে চোরের স্বজনেরা খবর পেয়ে দলবলসহ উপস্থিত হয় বিদ্যালয়ে। তারপর সেখানে থাকা রাজমিস্ত্রিদের মারধর করে এবং সেই কক্ষের জানালা ভেঙে ছিনিয়ে নেওয়া যাওয়া হয় আনহর আলী নামের ওই চোরকে। গত বুধবার রাতে ধর্মপাশা উপজেলার চামরদানি ইউনিয়নের জলুষা সাহাপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে এমনটি ঘটে। আনহর আলী জলুষা গ্রামের মৃত খেলন মিয়ার ছেলে। এ ঘটনাসহ চোরের ছবি ছড়িয়েছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে।
বছরখানেক ধরে জলুষা সাহাপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নতুন ভবন নির্মাণের কাজ চলছে। যার কাজ প্রায় শেষের দিকে। এ কাজের সাথে জড়িত মিস্ত্রিরা দৈনন্দিন কাজ শেষে সেখানেই অবস্থান করে। গত বুধবার রাত সাড়ে ১২টার দিকে আনহর আলী ভবন নির্মাণ কাজে ব্যবহৃত উপকরণ নৌকায় তুলতে থাকে। মিস্ত্রিরা তা দেখে ফেলে এবং তাকে বিদ্যালয়ের পুরনো ভবনের একটি কক্ষে তালাবদ্ধ করে রাখে। কিন্তু ভোররাতে আনহর আলীর স্বজনেরা খবর পেয়ে মিস্ত্রিদের মারধর করে জোরপূর্বক ছিনিয়ে নিয়ে যায় তাকে।
বিদ্যালয়ের সভাপতি মোশারফ হোসেন বলেন, ‘এ ব্যাপারে আমি কিছুই জানিনা। আমি জরুরি কাজে ময়মনসিংহে ছিলাম। এখনও (বৃহস্পতিবার বিকেল) বাড়িতে পৌঁছাতে পারিনি।’
তবে সংশ্লিষ্ট ভবন নির্মাণ কাজের ঠিকাদার এনামুল হক বলেন, ‘মিস্ত্রিদের মারধর করে জানালা ভেঙে ওই ব্যক্তিকে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। বিদ্যালয়ের সভাপতি বিষয়টি স্থানীয়ভাবে শেষ করার উদ্যোগ নিয়েছেন। যদি স্থানীয়ভাবে বিষয়টি শেষ না হয় তাহলে আইনী প্রক্রিয়া গ্রহণ করা হবে।’
মধ্যনগর থানার ওসি নির্মল দেব বলেন, ‘বিষয়টি শুনেছি। লিখিত অভিযোগ পাওয়া গেলে তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’