জামালগঞ্জে নৌপথে চাঁদাবাজির অভিযোগ

জামালগঞ্জ প্রতিনিধি
জামালগঞ্জে বিআইডব্লিউটিএ’র নাম ভাঙিয়ে নৌপথে চলছে বেপরোয়া চাঁদাবাজি। বুধবার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর এ ব্যাপারে লিখিত অভিযোগ করেছে দুর্লভপুর বালু পাথর ব্যবসায়ী সমিতি।
সমিতির ৭৮ জন স্বাক্ষরিত অভিযোগ থেকে জানা যায়, গত কিছুদিন যাবত মেসার্স জিসান এন্টারপ্রাইজ নামের একটি প্রতিষ্ঠান বিআইডব্লিউটি’র ইজারাদার দাবি করে সুরমা নদীতে লোড-আনলোডকৃত নৌযান থেকে অবৈধভাবে চাঁদা আদায় করছে। প্রতি ঘনফুট বালু থেকে ৭০ থেকে ৮০ পয়সা পর্যন্ত জোর পূর্বক অবৈধ চাঁদা আদায় করা হচ্ছে। প্রতিদিন নৌ-শ্রমিক ও ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে অবৈধভাবে লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে এই চক্র। উপজেলার রক্তি ও সুরমা নদীর মিলনস্থলের চলতি নদীতে চলাচলকারী বাল্কহেড থেকে প্রকাশ্যে তোলা হয় টাকা। চাঁদা দিতে রাজি না হলে নৌকায় থাকা শ্রমিকদের লাঞ্ছিত এবং মারধোর করে চাঁদাবাজ চক্রের সদস্যরা। এতে নিরাপদভাবে বালু পরিবহনে অনিশ্চয়তা দেখা দিয়েছে ব্যবসায়ীদের মধ্যে।
অভিযোগের ব্যাপারে অভিযুক্ত প্রতিষ্ঠান জিসান এন্টারপ্রাইজের স্বত্বাধিকারী শাহ রুবেল আহমদ জানান, আমি কোন চাঁদাবাজি করি না। সরকারকে রাজস্ব দিয়ে এই টোল আনা হয়েছে। বরং কিছু লোক উদ্দেশ্য প্রণোদিত ভাবে আমার পিছু লেগেছে। আমি তাদের বিরুদ্ধে ডিসি ও পুলিশ সুপার বরাবর অভিযোগ দায়ের করেছি।
জামালগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মীর মোহাম্মদ আব্দুন নাসের বলেন, নিয়মের বাইরে গিয়ে তারা যদি অতিরিক্ত টাকা আদায় করে এবং সুনির্দিষ্ট প্রমাণসহ যদি আমি অভিযোগ পাই তাহলে অবশ্যই আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বিশ্বজিত দেব বলেন, এ সংক্রান্ত একটি অভিযোগ আমি পেয়েছি। সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তার সাথে কথা বলে অভিযোগের সত্যতা মিললে ব্যবস্থা নেয়া হবে।