জামালগঞ্জে লেপ তোষক তৈরিতে ব্যস্ত কারিগররা

মো: ওয়ালী উল্লাহ সরকার, জামালগঞ্জ
জামালগঞ্জ উপজেলায় কয়েকদিন ধরে আবহাওয়ার ব্যাপক পরিবর্তন দেখা দিয়েছে। রাত শেষে ভোরে আলো ফুটলেও কুয়াশাচ্ছন্ন হয়ে থাকে চারপাশ, বুঝা যায় দরজায় কড়া নাড়ছে শীত। আর শীতের আগমনে লেপ তোষক তৈরিতে ব্যস্ত সময় পার করছেন কারিগররা।
জামালগঞ্জের প্রচলিত নিয়ম অনুযায়ী কার্টিক মাসে শীতের জন্ম হলেও পৌষ ও মাস এ দুইমাস শীত মৌসুম হিসাবে বিবেচিত হয়। জামালগঞ্জের বাসিন্দারা শীত মোকাবেলায় আগাম প্রস্তুতি নিতে ভিড় করেছেন লেপ তোষকের দোকানে। যে কারণে লেপ তোষক তৈরিতে ব্যস্ত সময় পার করছেন কারিগররা। অনেক পরিবারের লোকজন তাদের বাক্সে ভর্র্তি করে রাখা লেপ তোষক বের করে মেরামত করছে।
এ বিষয়ে লেপ তোষক তৈরীর কারীগর নবী হোসেন ও আবুল হোসেন জানান, কিছুদিন পর ক্রেতাদের ভিড় আরো বাড়বে। ক্রেতাদের আনাগোনা চলবে পুরো শীত জুড়ে।
সাচনাবাজার ও জামালগঞ্জ বাজারে গিয়ে দেখা যায়, লেপ তোষকের দোকানের সব কটিতেই ছিল কারিগরদের লেপ বানানোয় ক্যস্ত।। দোকানীরা ও অর্ডার গ্রহণ এবং বিভিন্ন রংয়ের কাপড় তুলা দেখাতে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন। এ দৃশ্য দেখা যায় উপজেলার বিভিন্ন হাটবাজারও।
এ বিষয়ে জামালগঞ্জের লেপতোষক ব্যবসায়ী মো. হাবিবুর রহমান জানান, তুলার মান ও পরিমাপের উপর নির্ভর করে লেপ তোষক তৈরির খরচ। এ বছর জিনিষপত্রের দাম বাড়ায় স্বাভাবিকভাবেই প্রতিটি লেপ তোষকের দাম ২শত’ থেকে ৩শত’ টাকা করে বেড়েছে। একটি লেপ তোষক বিক্রির করে ২শত’ থেকে আড়াইশত টাকা লাভ হয়।