জুলাইয়ে নির্যাতনের শিকার ২৯৫ জন নারী ও কন্যা

সু.খবর ডেস্ক
থামছেই না নারী ও কন্যাশিশু নির্যাতন। জাতীয় সংবাদপত্রগুলোতে প্রকাশিত প্রতিবেদনের ভিত্তিতে বাংলাদেশ মহিলা পরিষদের তৈরি করা এক প্রতিবেদনের প্রেক্ষিতে জানা যায়, শুধু মাত্র জুলাই মাসে মোট ২৯৫ জন নারী ও কন্যা নির্যাতনের শিকার হয়েছে এর মধ্যে ধর্ষণের শিকার হয়েছে ৪৮ জন কন্যাসহ ৭৩ জন।
তার মধ্যে ১০ জন কন্যা ও ৯ জন নারীসহ ১৯ জন দলবদ্ধ ধর্ষণের শিকার হয়েছে, ১ জন কন্যা ও ২ জন নারীকে ধর্ষণের পর হত্যা করা হয়েছে এবং ১ জন কন্যা ধর্ষণের পর আত্মহত্যার ঘটনা ঘটেছে। এছাড়াও ৯ জন কন্যাসহ ১৩ জনকে ধর্ষণের চেষ্টা করা হয়েছে।
সোমবার সংবাদমাধ্যমে পাঠানো এক বিজ্ঞপ্তিতে মহিলা পরিষদ জানায়, এই সময়ে ১১ জন যৌন নিপীড়নের শিকার হয়েছে এর মধ্যে ৮ জন কন্যা। ৯ জন উত্ত্যক্তকরণের শিকার হয়েছে। এর মধ্যে ৮ জন কন্যা। নারী ও কন্যা পাচারের ঘটনা ঘটেছে ৬ টি এর মধ্যে ৪ জন কন্যা। এসিডদগ্ধের শিকার হয়েছে ১ জন। ৩ জন অগ্নিদগ্ধের শিকার হয়েছে।
যৌতুকের কারণে নির্যাতনের শিকার হয়েছে ১৬ জন, এরমধ্যে ৫ জনকে যৌতুকের কারণে হত্যা করা হয়েছে। শারীরিক নির্যাতনের শিকার হয়েছে মোট ১৮ জন এর মধ্যে ৭ জন কন্যা। পারিবারিক সহিংসতা শিকার হয়েছে ৬ জন।
মহিলা পরিষদ জানায়, গৃহকর্মী নির্যাতনের শিকার হয়েছে ২ জন এর মধ্যে ১ জনকে হত্যা করা হয়েছে। বিভিন্ন কারণে ৯ জন কন্যাসহ ৪২ জনকে হত্যা করা হয়েছে।
এছাড়াও ১ জন কন্যাসহ ২ জনকে হত্যার চেষ্টা করা হয়েছে। ৮ জন কন্যাসহ ২৭ জনের রহস্যজনক মৃত্যু হয়েছে। ৬ জন কন্যাসহ ১৭ জনের আত্মহত্যার ঘটনা ঘটেছে, এরমধ্যে ২ জন কন্যাসহ ৪ জন আত্মহত্যার প্ররোচনার শিকার হয়েছে। ৮ জন কন্যাসহ ৯ জন অপহরণের ঘটনার শিকার হয়েছে।
এছাড়াও ১ জন কন্যাকে অপহরণের চেষ্টা করা হয়েছে। ফতোয়ার ঘটনার শিকার হয়েছে ৪ জন। ৪ জন কন্যাসহ সাইবার অপরাধের শিকার হয়েছে ৬ জন। বাল্যবিবাহের ঘটনা ঘটেছে ১০ টি। বাল্যবিবাহের ঘটনা প্রতিরোধ করা হয়েছে ৯ টি। এছাড়া ৩ জন কন্যাসহ ৮ জন বিভিন্নভাবে নির্যাতনের শিকার হয়েছে।
সূত্র : জনকন্ঠ