টাঙ্গুয়া রক্ষায় গানে গানে পর্যটকদের সচেতন করছে কিশোররা

স্টাফ রিপোর্টার
সৌন্দর্য্যরে লীলাভূমি টাঙ্গুয়ার হাওর। যার সৌন্দর্য্যরে প্রেমে মুগ্ধ দেশ-বিদেশের পর্যটকরা। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছবি দেখেই সেই সৌন্দর্য উপভোগ করতে ছুটে আসছেন পর্যটকরা। তবে দিন দিন ধ্বংসের দিকে যাচ্ছে হাওরটি। পর্যটকরা নৌকায় খাওয়া দাওয়া করে সেই খাবারের প্যাকেট, চিপসের প্যাকেট, প্লাস্টিকের বোতল হাওরে ফেলে দিচ্ছেন, এতে নষ্ট হচ্ছে পরিবেশ।
সম্প্রতি টাঙ্গুয়ার হাওরের পরিবেশ রক্ষায় স্থানীয় কিশোররা নিয়েছে নতুন এক উদ্যোগে। ঘুরতে যাওয়া পর্যটকদের শোনাচ্ছেন মরমী কবি হাসন রাজা, বাউল স¤্রাট শাহ আব্দুল করিমের গান। এছাড়াও হাওরের পরিবেশ রক্ষায় গান গেয়ে গেয়ে পর্যটকদের সর্তক করছেন।
তারা গাইছেন- ‘আমরা সবাই হাওরবাসী হাওর ছাড়া বুঝি না। টাঙ্গুয়ার হাওর মরতে আমরা দেব না। টাঙ্গুয়ার হাওরের ভাই-বন্ধুরা করছি মানা, প্রকৃতির সেই সম্পদ নষ্ট কইরও না। আমরা সবাই হাওরবাসী হাওর ছাড়া বুঝি না। টাঙ্গুয়ার হাওর মরতে আমরা দেব না। টাঙ্গুয়ার হাওরের পাক-পাখালি সময় মত দেয় ধামালি, হিজল গাছের খরচ আছে, দেখতে লাগে কি সুন্দর, টাঙ্গুয়ার হাওর মরতে আমরা দেব না। পাগল লালচানে বলে টাঙ্গুয়ার পাড়ে জন্ম মোরে, অতিথিও পাখি নাচে, দেখতে লাগে কি সুন্দর। টাঙ্গুয়ার হাওর মরতে আমরা দিব না।’
গাইছিলেন কিশোর মো. আব্দুল হামিদ (১৭)। ছোট একটি নৌকায় করে পর্যটকদের ঘুরিয়ে জীবিকা নির্বাহ করে সে। কিন্তু সেই জীবিকা নির্বাহের প্রধান স্থান টাঙ্গুয়ার হাওরের সৌন্দর্য দিন দিন কমতে শুরু করেছে। পাশাপাশি পর্যটকরা খাওয়া দাওয়া করে সেই ময়লা হাওরে ফেলায় নোংরা হচ্ছে হাওরের পানি। হাওরকে বাঁচাতে গানের মাধ্যমে পর্যটকদের সচেতন করেছেন তিনি। তবে শুধু আব্দুল হামিদ একা নন, হাওরে ছোট ছোট নৌকায় পর্যটকদের ঘুরিয়ে জীবিকা নির্বাহ করা ৩০ জনেরও বেশি শিশু গানে গানে পর্যটকদের সচেতন করছেন।
পর্যটক দেলোয়ার হোসেন বলেন, টাঙ্গুয়ার হাওরের সৌন্দর্য দেখে সত্যি আমি মুগ্ধ। তার থেকে বেশি মুগ্ধ হয়েছি এখানের কিশোরদের হাওরের সৌন্দর্য রক্ষা করার প্রয়াস দেখে।
পর্যটক তাসলেমা চৌধুরী বলেন, টাঙ্গুয়ার হাওরের সৌন্দর্য্যরে প্রেমে পড়ে গেছি। টাঙ্গুয়ার হাওরের সৌন্দর্য রক্ষায় প্রশাসনকে বেশি করে নজরদারি করতে হবে।
তাহিরপুর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা মো. রায়হান কবির বলেন, হাওরের সৌন্দর্য রক্ষায় আমরা প্রতিনিয়ত অভিযান পরিচালনা করছি। নৌকার চালকদেরও বলে দেওয়া হয়েছে হাওরে যাতে পর্যটকরা কোন ময়লা না ফেলে। নৌকায় ময়লা ফেলার ডাস্টবিন রাখতে হবে।