তাহিরপুরে শ্রমিকদের অনির্দিষ্টকালের নৌ ধর্মঘট

তাহিরপুর প্রতিনিধি
তাহিরপুরে পাটলাই নদীতে বিআইডব্লিউটি এর নামে অবৈধ ভাবে চাঁদা বন্ধের দাবিতে নৌযান শ্রমিকদের অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘট শুরু হয়েছে। মঙ্গলবার বিকাল থেকে ধর্মঘট শুরু হয়। এরপূর্বে তাহিরপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নিকট সাত চাঁদাবাজের নাম উল্লেখ করে একটি লিখিত অভিযোগ দেন সুনামগঞ্জ মালবাহী নৌযান শ্রমিক সমবায় সমিতির সহ সভাপতি পঙ্কজ তালুকদার।
অভিযুক্তরা হলেন সুনামগঞ্জ হাজীপাড়ার জাপ্পু মিয়া, উপজেলা উত্তর শ্রীপুর ইউনিয়নের নয়াবন্দ গ্রামের শামসু মিয়ার ছেলে রিফাত আহমদ, মন্দিয়াতা গ্রামের আব্দুল হক, একই গ্রামের সাইফুল ইসলামের ছেলে আলাল মিয়া, ফখরুল হকের ছেলে আজিজুল, সাজিনুর মিয়ার ছেলে জিলানী এবং নুরুদ্দিনের ছেলে অলিনুর।
অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, উপজেলা শ্রীপুর উত্তর ইউনিয়নের বড়ছড়া, ছাড়াগাঁও, বাগলী শুল্ক স্টেশনের ডিপো থেকে চুনাপাথর ও কয়লা নৌকা ভর্তি করে হাটখলা বাজার সংলগ্ন পাটলাই নদী দিয়ে দেশের বিভিন্ন স্থানে সরবরাহ করা হয়। গত মঙ্গলবার সকালে এসব শুল্ক স্টেশন থেকে প্রায় দেড় শতাধিক নৌকা চুনাপাথর ও কয়লা নিয়ে হাটখলা বাজার সংলগ্ন পাটলাই নদীর সামনে আসলে বিআইডব্লিউটিএর নামে অভিযুক্ত চক্রটি প্রতি নৌযান থেকে এক হাজার থেকে তিন হাজার টাকা পর্যন্ত চাঁদা দাবি করে। কিন্তু নৌযান শ্রমিকরা চাঁদা দিতে অপারগতা প্রকাশ করলে অভিযুক্ত চক্রটি নৌযান আটকে দেয় এবং তাদের ভয়ভীতি সহ মারপিট করা হয়। এরই প্রতিবাদে নৌযান শ্রমিক ও মালিকরা কর্মবিরতি সহ অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘটের ডাক দেয়।
সুনামগঞ্জ মালবাহী নৌযান শ্রমিক সমবায় সমিতির সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ আলী বলেন, মঙ্গলবার বিকাল থেকে হঠাৎ করে বিআইডব্লিউটিএর নামে হাটখলা বাজার সংলগ্ন পাটলাই নদীতে প্রায় দেড় শতাধিক মালবাহী নৌযান আটকিয়ে অবৈধভাবে চাঁদা দাবি করে অভিযুক্তরা। যার ফলে নদীতে অবৈধ ভাবে চাঁদা বন্ধের দাবিতে নৌযান শ্রমিকরা অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘাটের ডাক দেয়।
এ বিষয়টি অস্বীকার করে বিআইডব্লিউটিএর ইজারাদার মো. ছিদ্দিক আহমেদ বলেন, আমরা বিআইডব্লিউটিএর কর্তৃপক্ষ থেকে বৈধ উপায়ে ইজারাপ্রাপ্ত হয়েই পাটলাই নদীতে মালবাহী নৌযান থেকে নির্দিষ্ট পরিমানের টোল আদায় করতে বলেছি। কিন্তু নৌযান শ্রমিকরা টোল না দিয়ে তারা নৌ ধর্মঘটের ডাক দেয়।
অভিযোগ প্রাপ্তির সত্যতা স্বীকার করে তাহিরপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পদ্মাসন সিংহ বলেন, বিআইডব্লিউটিএর অফিসিয়াল কোন প্রকার কাগজপত্র এখনও আমার হাতে আসেনি। গত ২দিন আগে রিফাত নামে একজন আমার কাছে বিআইডব্লিউটিএর একটি কাগজ নিয়ে এসেছিল। তাকে টোল আদায় করতে নিষেধ করা হয়েছে।