তেরা মিয়া হত্যা মামলায় ১ জনের যাবজ্জীবন

স্টাফ রিপোর্টার
ছাতকের আলোচিত তেরা মিয়া হত্যা মামলায় ১ জনের যাবজ্জীবন ও ৮ জনের বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড দিয়েছেন অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালত। বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে ১১ টায় এই রায় প্রদান করেন অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ মহিউদ্দিন মুরাদ।
রায়ের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন আদালতের অতিরিক্ত পিপি অ্যাড. গোলাম মোস্তফা।
রায় ঘোষণার সময় দণ্ডপ্রাপ্ত ৫ আসামি উপস্থিত ছিলেন। অন্য ৪ জন আসামী পলাতক আছেন।
আদালত ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, ১৯৯৯ সালে ছাতকের বলারপীরপুর সড়কের তেতইখালে একটি সেতু নির্মাণ নিয়ে বলারপীরপুর গ্রামের বাসিন্দা কালারুখা ইউনিয়নের তৎকালীন চেয়ারম্যান আরজু মিয়া ও তার নির্বাচনী প্রতিদ্বন্দ্বি গন্ধর্বপুর গ্রামের আব্দুল হাই আজাদ মিয়ার মধ্যে দ্বন্দ্ব শুরু হয়। এর জের ধরে ১৯৯৯ সালের ২২ নভেম্বর সকালে দুইপক্ষের লোকজনের মধ্যে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ হয়। সংঘর্ষে আরজু মিয়ার পক্ষের অন্তত ১৬ জন গুলিবিদ্ধ হয়। আহত সবাইকে দুপুরে সিলেটের এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। চিকিৎসাধীন অবস্থায় আহত তেরা মিয়া হাসপাতালে মারা যান। ঘটনার দুইদিন পর ২৪ নভেম্বর গন্ধর্বপুর গ্রামের ২৮ জনকে আসামি করে ছাতক থানায় মামলা দায়ের করেন নিহতের ভাতিজা সিরাজুল ইসলাম। তদন্ত শেষে পুলিশ ২০০০ সালের ২১ এপ্রিল ৪৮ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দাখিল করেন। এরমধ্যে ৮ জন মৃত্যুবরণ করেন। দীর্ঘ শুনানী শেষে আজ বৃহস্পতিবার অন্য ৯ জনের বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড দেন আদালত। এছাড়া ৩১ আসামীকে খালাস দেওয়া হয়।
মামলায় রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী ছিলেন এপিপি গোলাম মোস্তফা। আসামি পক্ষে আইনজীবী ছিলেন অ্যাড. সালেহ আহমদ ও অ্যাড. রবিউল লেইস রোকেস।