‘ত্যাগের জীবন বেচে নিয়েছিলেন তিনি’

স্টাফ রিপোর্টার
রণেশ দাশগুপ্তের জন্মবাষিকী উপলক্ষে আলোচনাসভা ও পাঠ প্রতিযোগিতার পুরষ্কার বিতরণী অনুষ্ঠিত হয়েছে। রবিবার বিকালে সুনামগঞ্জ জেলা শিল্পকলা একাডেমির লোকসংস্কৃতি সংগ্রহশালায় এই আলোচনাসভা ও পুরষ্কার বিতরণ অনুষ্ঠিত হয়।
জেলা উদীচীর সহসভাপতি রমেন্দ্র কুমার দে মিন্টুর সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলমের সঞ্চালনায় আলোচনাসভায় বক্তব্য রাখেন কবি ও লেখক ইকবাল কাগজী, জেলা মহিলা পরিষদের সভাপতি গৌরী ভট্টাচার্য্য, সুনামগঞ্জ সরকারি জুবিলী উচ্চ বিদ্যালয়ের সিনিয়র শিক্ষক অনুপ নারায়ন তালুকদার।
আলোচনাসভায় বক্তারা বলেন, রণেশ দাশগুপ্ত ত্যাগের জীবন বেচে নিয়েছিলেন। এক মহান আদর্শের পিছনে নিজেকে বিলিয়ে দেওয়ার এক চূড়ান্ত দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছিলেন তিনি। ‘আলো দিয়ে আলো জ্বালা’, ‘উপন্যাসের শিল্পরূপ’, ‘শিল্পীর স্বাধীনতার প্রশ্নে’, ‘ল্যাটিন আমেরিকার মুক্তি সংগ্রাম’, ‘কখনো চম্পা কখনো অতশী’র মতো অসামান্য সব প্রবন্ধের জন্ম রণেশ দাশগুপ্তের হাতে। কয়েকটি ভাষায় পণ্ডিত ছিলেন রণেশ দাশগুপ্ত। কিন্তু জীবনে মানিয়ে চলা বা স্বাধীনতা বিকিয়ে দেওয়ার সত্ত্বা ছিলেন না রণেশ দাশগুপ্ত। বর্তমান প্রজন্মকে এই মহান বিপ্লবীর জীননাচরণ অনুসরণ করার আহ্বান জানান বক্তারা।
আলোচনাসভা শেষে ৫ টি বিভাগের প্রথম, দ্বিতীয় ও তৃতীয় নির্বাচিত করে মোট ১৪ জনকে পুরষ্কার, সনদ দেয়া হয়। এই খাতাগুলো কেন্দ্রের কাছে পাঠানো হবে। কেন্দ্রীয়ভাবে সারাদেশের প্রথম, দ্বিতীয় ও তৃতীয় স্থান অধিকার করা ব্যক্তিদের মূল্যায়ন করে পুরষ্কিত করা হবে।
এসময় উপস্থিত ছিলেন জেলা উদীচীর কার্যনির্বাহী সদস্য চন্দন রায়, জেলা উদীচীর নির্বাহী সদস্য আরতি পাল, অ্যাড মতিয়া বেগম, জেলা উদীচীর সহসাধারণ সম্পাদক জহির উদ্দিন, সাংগঠনিক সম্পাদক আসাদ মনি, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ইফতেখার সাজ্জাদ পিয়াল প্রমুখ।