থ্যালাসেমিয়া প্রতিরোধে সচেতন হই, সুস্থ শিশুর জন্ম নিশ্চিত করি

ডা. সৈকত দাস
আজ ৮ মে, বিশ্ব থ্যালাসেমিয়া দিবস। থ্যালাসেমিয়া একটি জিনঘটিত বংশগত রক্তের রোগ। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার পরিসংখ্যান মতে, আমাদের দেশের ৭ শতাংশ মানুষ থ্যালাসেমিয়া রোগের বাহক। প্রতি বছর দেশে ৭ হাজার থ্যালাসেমিয়া আক্রান্ত শিশু জন্ম নিচ্ছে। এই রোগে রক্তে পরিবহনকারী হিমোগ্লোবিন কণার উৎপাদনে ত্রুটি হয়। থ্যালাসেমিয়া ধারণকারী মানুষ সাধারণত রক্তে অক্সিজেনস্বল্পতা বা “অ্যানিমিয়া” তে ভুগে থাকেন। অ্যানিমিয়ার ফলে অবসাদগ্রস্ততা থেকে শুরু করে অঙ্গহানি ঘটতে পারে। থ্যালাসেমিয়া দুইটি প্রধান ধরনের হতে পারে: ১) আলফা থ্যালাসেমিয়া ২) বিটা থ্যালাসেমিয়া। সাধারণভাবে আলফা থ্যালাসেমিয়া, প্ত থ্যালাসেমিয়া থেকে কম তীব্র। আলফা থ্যালাসেমিয়া বিশিষ্ট ব্যক্তির ক্ষেত্রে রোগের উপসর্গ মৃদু বা মাঝারি প্রকৃতির হয়ে থাকে। অন্যদিকে বিটা থ্যালাসেমিয়ার ক্ষেত্রে রোগের তীব্রতা বা প্রকোপ অনেক বেশি; এক-দুই বছরের শিশুর ক্ষেত্রে ঠিকমত চিকিৎসা না করলে এটি শিশুর মৃত্যুর কারণ হতে পারে। প্রতিবছর বিশ্বে প্রায় ১ লক্ষ শিশু থ্যালাসেমিয়া নিয়ে জন্মগ্রহণ করে।
লক্ষণ সমূহঃ
অস্বাভাবিক অস্থি:
প্লীহা বড় হয়ে যাওয়া:
অবসাদ অনুভব
দুর্বলতা
শ্বাসকষ্ট
মুখ-মন্ডল ফ্যাকাশে হয়ে যাওয়া
অস্বস্তি
ত্বক হলদে হয়ে যাওয়া (Jaundice)
মুখের হাড়ের বিকৃতি
ধীরগতিতে শারীরিক বৃদ্ধি
পেট বাইরের দিকে প্রসারিত হওয়া বা বৃদ্ধি পাওয়া
গাঢ় রঙের প্রস্রাব
চিকিৎসাঃ
মাইনর থ্যালাসেমিয়াতে সাধারণত চিকিৎসা প্রয়োজন হয় না। থ্যালাসেমিয়া মেজরে নিয়মিত রক্ত সঞ্চালন প্রধান চিকিৎসা। বার বার রক্ত নেবার একটি বিপজ্জনক পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হলো বিভিন্ন প্রত্যঙ্গে অতিরিক্ত লৌহ জমে যাওয়া। এর ফলে যকৃত বিকল হয়ে রোগী মারাও যেতে পারে। এ ধরনের জটিলতা প্রতিরোধে আয়রন চিলেশন থেরাপী দেয়া হয়, অতিরিক্ত লৌহ বের করে দেবার জন্য। অস্থিমজ্জা প্রতিস্থাপন থ্যালাসেমিয়ার একটি কার্যকরী চিকিৎসা।
প্রতিরোধ :
থ্যালাসেমিয়া প্রতিরোধ করা খুবই সম্ভব। এটি একটি প্রতিরোধযোগ্য রোগ।
স্বামী স্ত্রী দুজনের যে কোন একজন যদি সম্পূর্ণ সুস্থ থাকেন, তাহলে নবজাতকের থ্যালাসেমিক হবার কোন সম্ভাবনা থাকে না। তবে নবজাতক থ্যালাসেমিয়ার বাহক হতে পারে যা কোন রোগ নয়।
তাই এ রোগের বাহকদের মধ্যে বিয়ে নিরুৎসাহিত এবং প্রতিহত করার মাধ্যমে সমাজে নতুন থ্যালাসেমিক শিশুর জন্ম হ্রাস করা যায়। সুতরাং দেরি না করে আজই থ্যালাসেমিয়া নির্ণয় এর জন্য হিমোগ্লোবিন ইলেকট্রোফোরেসিস নামক পরীক্ষাটি করান এবং আপনার শিশুকে এর অভিশাপ থেকে মুক্ত রাখুন।
এছাড়া ইতিমধ্যে ঝুঁকিপূর্ণ অর্থাৎ যেসব পরিবারে স্বামী ও স্ত্রী দুজনই এ রোগের বাহক অথবা যাদের এক বা একাধিক থ্যালাসেমিক শিশু আছে তারা গর্ভস্থ ভ্রুণ পরীক্ষার মাধ্যমে সম্ভাব্য থ্যালাসেমিক শিশু নির্ণয় এবং তা পরিহার (গর্ভপাত) করতে পারেন। গর্ভাবস্থার ১৬ থেকে ১৮ সপ্তাহের মধ্যে পরীক্ষাটি করালে ভালো হয়।
গর্ভস্থ সন্তানের থ্যালাসেমিয়া জানার জন্য যে পরীক্ষাগুলো করতে হবে :
কোরিওনিক ভিলিয়াস স্যাম্পলিং,অ্যামনিওসেনটিসিস,ফিটাল ব্লাড স্যাম্পলিং।
আমাদের অনাগত প্রজন্ম যাতে থ্যালাসেমিয়ার মত একটি ভয়াবহ রোগ নিয়ে না জন্মায়, তার জন্য আমাদের প্রত্যেককে থ্যালাসেমিয়া সম্পর্কে সচেতন হতে হবে।
মনে রাখতে হবে,থ্যালাসেমিয়া বংশগত রোগ। সক্রামক বা ছোঁয়াচে নয়। এটি পিতামাতার কাছ থেকে সন্তানের মধ্যে আসে। তাই আমরা সচেতনতার মাধ্যমেই সকল সুস্থ শিশুর জন্ম নিশ্চিত করতে পারি।
লেখক : ডা. সৈকত দাস
এম.বি.বি.এস, বিসিএস(স্বাস্থ্য)
ডি.সি.এইচ (শিশুরোগ- কোর্স)
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়, ঢাকা
মেডিকেল অফিসার, ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেলা সদর হাসপাতাল, সুনামগঞ্জ।