দক্ষিণ সুনামগঞ্জে মুদির দোকান লুটপাটের অভিযোগ

দক্ষিণ সুনামগঞ্জ অফিস
দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলার শিমুলবাঁক ইউনিয়নের তেরহাল পয়েন্টের একটি মুদির দোকানে পূর্ব বিরোধের জের ধরে প্রতিপক্ষের লুটপাটে ১ লক্ষ ৬৩ হাজার ৯ শত টাকার ক্ষতি হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।
তেরহাল গ্রামের আফতাই মিয়ার পুত্র ইশাদ মিয়া (৩৭), সোনাই মিয়ার পুত্র আঙ্গুর মিয়া (২৪) ও মৃত তারা মিয়ার পুত্র রাসেল মিয়া (২৩) গংদের বিরুদ্ধে দক্ষিণ সুনামগঞ্জ থানায় লুটপাটের একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন একই গ্রামের মৃত আব্দুল আজিজের পুত্র মিলন মিয়া (২৬)।
জানা যায়, গতকাল সকাল ৮টায় ইশাদ মিয়া, আঙ্গুর মিয়া, রাসেল মিয়া দেশীয় অস্ত্র রামদা, ঢেগার, সুলফি, লোহার রড ও কাঠের রোল নিয়ে মিলন মিয়ার দোকানে ঢুকে প্রাণনাশের ভয় দেখিয়ে লুটপাট চালায়। দোকানে থাকা বিভিন্ন মালামাল নিয়ে যাওয়ার পাশাপাশি দোকানের ক্যাশবাক্সে থাকা প্রায় ১ লাখ ৫০ হাজার ২শত’ টাকাও নিয়ে যায়। লুটপাটের পর দোকানে আসবাবপত্র ভাংচুর করে প্রায় ৩০ হাজার টাকার ক্ষতিসাধন করা হয়েছে বলে অভিযোগে উল্লেখ করা হয়।
অভিযোগকারী মুদির দোকানী মিলন মিয়া বলেন, বিবাদীরা আমাকে একা পেয়ে দেশীয় অস্ত্র নিয়ে আমার দোকানে ঢুকে লুটপাট চালায়। আমার গলায় রামদা লাগিয়ে ভয় দেখিয়ে দোকানের ক্যাশবাক্স থেকে দেড় লাখ টাকা নিয়ে যায়। শুধু লুটপাটই নয় তারা আমার উপরেও হামলা চালিয়েছে। আমি প্রশাসনের কাছে জোর দাবি জানাচ্ছি দ্রুত যেন অভিযুক্তদের আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি প্রদান করা হয়।
প্রত্যক্ষদর্শী আশরাফ মিয়া বলেন, ইশাদ মিয়া, আঙ্গুর মিয়া ও রাসেল মিয়া মিলনের দোকানে ঢুকে লুটপাট চালিয়ে দোকানে ভাংচুর করে ক্যাশবাক্স থেকে নগদ টাকা হাতিয়ে নিয়ে যায়।
রেকন মিয়া নামের আরেকজন বলেন, পূর্ব বিরোধের জের ধরেই মিলনের দোকানে লুটপাট চালিয়েছে প্রতিপক্ষ। তারা দাঙ্গাবাজ হওয়ার এলাকার মানুষ তাদের বিরুদ্ধে কথা বলতে ভয় পায়।
মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে অভিযোক্তদের পক্ষে বোরহান উদ্দিন বলেন, দিনদুপুরে একটি গ্রামের দোকানে জনতার সম্মুখে লুটপাট কল্পনা ও করা যায় না। এটি একটি ষড়যন্ত্র।
এ ব্যাপারে তদন্তকারী কর্মকর্তা এস আই জহিরুল ইসলাম বলেন, বিষয়টি তদন্তাধীন রয়েছে প্রাথমিক তদন্তে আংশিক সত্যতা পাওয়া গেছে।
দক্ষিণ সুনামগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) কাজী মুক্তাদীর হোসেন বলেন, অভিযোগ পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। তদন্ত মোতাবেক সত্যতা যাচাই করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।