দিরাইয়ে সংঘর্ষে নিহত ১

দিরাই প্রতিনিধি
দিরাইয়ে সরকারি খাস জমির দখল নিয়ে পূর্ব বিরোধকে কেন্দ্র করে দফায় দফায় দু’পক্ষের সংঘর্ষে ১ জন নিহত এবং উভয়পক্ষের প্রায় ৫০ জন আহত হয়েছেন। শনিবার বেলা ১০টার দিকে উপজেলার ভাটিপাড়া ইউনিয়নের নুরনগর গ্রামে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। নিহত শাহ মুল্লুক (৪৫) নুরনগর গ্রামের মৃত. আব্দুস সালামের পুত্র। সংবাদ পেয়ে দিরাই থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। সংঘর্ষের ঘটনায় নুরনগর গ্রামের জমশেদ মিয়া, নাঈম মিয়া, মুনসুর আহমেদ কে আটক করেছে পুলিশ।
এদিকে সংঘর্ষের ঘটনায় গুরুতর আহত নুরনগর গ্রামের তোফাজ্জুল, শামসুল ইসলাম, সফর আলী, সিরাজুল ইসলাম, লুৎফুর রহমান, ইউসুফ মিয়া, আব্দুল বারিক, আবুবক্কর সিদ্দিক কে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।
জানা যায়, নুরনগর গ্রাম সংলগ্ন পিয়াইন নদীর উত্তর পাড়ে সরকারি খাস খতিয়ানের এক একর জমি ও কোন্দাকাটি নামক গোপাট নিয়ে গ্রামের ফিরোজ মিয়া ও শামসুল ইসলামের লোকজনের মধ্যে বিরোধ দেখা দেয়। এ নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে এর আগেও একাধিকবার সংঘর্ষ হয়েছে। এছাড়াও ডজনখানেক মামলাও রয়েছে। গত বৃহস্পতিবার শামসুল ইসলামের পক্ষের বৃদ্ধ সুরুজ আলী এবং তার স্ত্রী-পুত্রকে মারধর করে ফিরোজ মিয়ার লোকজন। এরপর থেকে দুই পক্ষের মধ্যে দফায় দফায় ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। শনিবার সকালে দুই পক্ষ দেশীয় অস্ত্রসস্ত্র নিয়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। ঘন্টাব্যাপী চলা এই সংঘর্ষে শামসুল ইসলামের পক্ষের শাহ মুল্লুক (৪৫) দেশীয় অস্ত্রের আঘাতে ঘটনাস্থলেই প্রাণ হারান।
স্থানীয়রা জানান, হতদরিদ্রদের নিকট থেকে টাকা নিয়ে পিয়াইন নদী সংলগ্ন খাস জমি ফিরোজ মিয়া গং দখল দেয়ার চেষ্টা করলে বাধা হয়ে উঠেন শামসুল ইসলাম ও তার লোকজন। এ নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে বিরোধ দেখা দেয়।
দিরাই থানার ওসি আশরাফুল ইসলাম বলেন, ঘটনাস্থলে পুলিশ মোতায়েন রয়েছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আছে। নিহত শাহ মুল্লুকের সুরতহাল প্রতিবেদন প্রস্তুত করা হচ্ছে। লাশ ময়নাতদন্তের জন্য সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালে পাঠানো হবে।
ঘটনাস্থলে অবস্থানরত এসআই আজিজ ৩ জনকে আটকের সত্যতা জানান, তারা হলেন, নুর নগর গ্রামের জমশেদ মিয়া, নাঈম মিয়া, মুনসুর আহমেদ।