দুইদিন ধরে বিদ্যুৎহীন জগন্নাথপুর

জগন্নাথপুর অফিস
প্রবাসী অধ্যুষিত জগন্নাথপুরে দুইদিন ধরে বিদ্যুৎ না থাকায় চরম দুর্ভোগে পড়েছেন উপজেলাবাসী। গত মঙ্গলবার ও বুধবার এ দু’দিন ধরে এ উপজেলায় বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ রয়েছে। ফলে অসহনীয় ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন জগন্নাথপুরের লোকজন।
জানা যায়, অব্যাহত বৃষ্টিপাত ও ঢলে গত মঙ্গলবার দুপুরে বন্যার পানি সিলেটের বরইকান্দিস্থ উপকেন্দ্রের ৩৩ হাজার কেভি সঞ্চালন লাইনের কন্ট্রোল রুমে ঢুকে পড়ে। উপকেন্দ্রে পানি প্রবেশ করায় জগন্নাথপুরের বিদ্যুৎ সংযোগ লাইন বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে। ওই কন্ট্রোল রুম থেকে জগন্নাথপুর উপজেলায় বিদ্যুৎ সরবরাহ হয়ে থাকে।
এদিকে গত মঙ্গলবার দুপুর থেকে অনির্দিষ্টকালের জন্য জগন্নাথপুরে বিদ্যুৎ থাকবে না এই খবর ছড়িয়ে পড়ে। বিকেল থেকে পৌরশহরসহ উপজেলার বিভিন্ন হাটবাজারের দোকানে মোমবাতি কিনতে ক্রেতাদের ঢল নামে। কোনো কোনো ব্যবসায়ী মোমবাতির চাহিদা বেড়ে যাওয়ায় অতিরিক্ত দামে মোমবাতি বিক্রি করেন বলে অনেক ক্রেতারা অভিযোগ করেন।
সন্ধ্যা ঘনিয়ে আসার সঙ্গে সঙ্গে প্রকৃতির বৈরী আবহাওয়ার সঙ্গে পুরো জগন্নাথপুর অন্ধকারাচ্ছন্ন হয়ে পড়ে। সেই সঙ্গে দেখা দেয় তীব্র পানি সংকট, অচল হয়ে পড়ে মোবাইলের নেটওয়ার্ক ও ইন্টারনেট সংযোগ। দীর্ঘ সময় বিদ্যুৎ না থাকায় ব্যবসা বাণিজ্যের ক্ষতি হচ্ছে বলে জানান ব্যবসায়ীরা।
পৌর শহরের জগন্নাথপুর বাজারের রেস্টুরেন্ট ব্যবসায়ীরা জানান, গত দুই দিন ধরে বিদ্যুৎ না থাকায় ব্যবসা প্রতিষ্ঠান অন্ধকারাচ্ছন্ন হয়ে পড়েছে। মোমবাতির আলো এখন ভরসা। মটর (পানির মেশিন) বন্ধ থাকায় খাবার পানি সরবরাহ করা কষ্টকর হয়ে পড়েছে। এতে করে মারাত্মক ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছি।
ইকড়ছই আবাসিক এলাকার গৃহিনী সামিনা আক্তার জানালেন, দীর্ঘ সময় বিদ্যুৎহীন অবস্থায় আছি আমরা। এতে করে খাবারের পানির সংকট দেখা দিয়েছে। এছাড়া ফ্রিজে থাকা বিভিন্ন খাদ্যদ্রব্য নষ্ট হয়ে যাচ্ছে।
উপজেলা নাগরিক ফোরামের যুগ্ম আহবায়ক রুমানুল হক রুমেন জানান, বিদ্যুৎ সংযোগ বন্ধ থাকায় খাবারের পানির সমস্যা, ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানে অজুর পানির সংকট, মোবাইল চার্জ দেয়া যাচ্ছে না। এরমধ্যে মোবাইলের নেটওয়ার্ক ও ইন্টারনেট অচল হয়ে পড়েছে। মাঝে মধ্যে সামান্য সময় নেটওয়ার্ক চালু থাকলেও অধিকাংশ সময় সেবা পাওয়া যাচ্ছে না। ফলে দেশ বিদেশে অবস্থানরত স্বজনদের সঙ্গে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। দ্রুত এ সমস্যা সমাধানের জন্য সংশ্লিষ্টদের আহবান জানাচ্ছি।
জগন্নাথপুর উপজেলা আবাসিক (বিদ্যুৎ) প্রকৌশলী আজিজুস ইসলাম জানান, বন্যার পানি সাবস্টেশনের কন্ট্রোল রুমে ঢুকে যাওয়ায় সংযোগ দেয়া যাচ্ছে না। আমরা সমস্যা সমাধানে কাজ করছি।
তিনি জানালেন, ১৯৮৬ সালে বিউবো’র বিদ্যুৎ সিলেটের বরইকান্দি এলাকা থেকে জগন্নাথপুরে প্রথম সংযোগ চালু হয়। জগন্নাথপুরের ১টি পৌরসভা ও ৮ ইউনিয়নে বর্তমানে ২১ হাজার গ্রাহক রয়েছে।