দোয়ারায় বিএনপি ও ছাত্রদলের মিছিলে যুবলীগ ও ছাত্রলীগের ধাওয়া, আহত ৬

দোয়ারাবাজার প্রতিনিধি
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কে কটুক্তি করে বক্তব্য দেয়ায় বিএনপি ও ছাত্রদলের মিছিলে ধাওয়া করেছে যুবলীগ ও ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। রবিবার বিকালে এতে বিএনপির ৬ জন নেতাকর্মী আহত হন। এ সময় পুলিশ প্রশাসন তৎপর থাকায় ছাত্রলীগ ও ছাত্রদলের মধ্যে বড় ধরনের অপ্রীতিকর ঘটেনি।
এর আগে পূর্বঘোষিত ছাত্রদলের কেন্দ্রিয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে রবিবার সকাল থেকেই উপজেলা সদরে ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা জড়ো হতে থাকে। বিকাল ৩টার দিকে উপজেলা পরিষদের সামনে থেকে মিছিল বের হয়। মিছিলটি দোয়ারাবাজার সরকারি মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের পাশে আসার পরপরই যুবলীগ ও ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা ধাওয়া করে।
এসময় উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের আহবায়ক ও ইউপি সদস্য এরশাদুর রহমান, যুবদলের আহবায়ক মাদব রায়, যুবদলের সদস্য সচিব জামাল উদ্দিন, বিএনপির আহবায়ক কমিটির সদস্য এইচ এম কামাল, যুবদল নেতা রাফিকুল ও আবরু মিয়া আহত হন। পরে মিছিলটি সংঘবদ্ধ হয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার বাসভবনের সামনে ২ ঘন্টাব্যাপী দেশীয় অস্ত্র-শস্ত্র ও ইট পাটকেল নিয়া অবস্থান নেয়।
উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক আহবায়ক রতন লাল দাস ও ছাত্রলীগ নেতা এনামুল হাসান হৃদয় বলেন, জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক জুয়েল জননেত্রী শেখ হাসিনাকে নিয়ে কুরুচিপূর্ণ বক্তব্য দেওয়ায় তাকে দ্রুত গ্রেফতারের দাবিতে রবিবার বিকেলে আমরা মানববন্ধন করছিলাম। এসময় বিএনপি ও ছাত্রদলের মিছিলে শেখ হাসিনাকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে মিছিলটি বাজারের দিকে অগ্রসর হতে থাকে। ছাত্রলীগের পক্ষ থেকে অকথ্য ভাষা পরিহার করে শান্তিপূর্ণভাবে মিছিল করার আহবান জানাই। এতে তারা আর ক্ষিপ্ত হয়ে আর বেশি গালিগালাজ করতে থাকে। পরে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা বাধা প্রধান করে।
বিএনপির জেলা কমিটির সহ সাংগঠনিক সম্পাদক ও দোয়ারাবাজার সদর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুল বারী বলেন, কেন্দ্রীয় কমিটির অংশ হিসেবে আমরা শনিবার রাতে দোয়ারাবাজার থানায় গিয়ে বরিবার বিকেলে মিছিল করার জন্য অনুমতি নিয়ে মিছিলটি বের করি। প্রশাসন আমাদেরকে যথেষ্ট সহযোগিতা করে। এসময় আওয়ামী লীগ ও ছাত্র লীগের সন্ত্রাসী বাহিনী আমাদের উপর অতর্কিত হামলা চালায়। আমাদের কয়েকজন নেতাকর্মীকেও আহত করেছে তারা।
দোয়ারাবাজার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা দেব দুলাল ধর বলেন, রবিবার বিকেলে বিএনপি ও ছাত্রদলের মিছিল বের করে। এসময় ছত্রলীগের নেতাকর্মীরা মিছিলটি প্রতিহত করার চেষ্টা করে। আমরা আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির নিয়ন্ত্রণে রাখার স্বার্থে আমরা সর্বাত্মক চেষ্টা চালিয়ছি।